দীর্ঘক্ষণ বাড়িতে পড়ে দেহ, সৎকারে এগিয়ে এলেন তৃণমূল নেতা

201

তপন: সকাল থেকে বৃদ্ধের মৃতদেহ বাড়িতে পড়ে থাকলেও ভয়ে সৎকারে এগিয়ে আসেননি কেউ। অবশেষে জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি গৌতম দাসের উদ্যোগে মৃতদেহের সৎকার করা হল। জানা গিয়েছে, মৃতের নাম সুশীল রায় (৬২)। বাড়ি তপন ব্লকের রামচন্দ্রপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের সুকদেবপুর বাসন্তীতলায়। সংসারে স্ত্রী ছাড়া তাঁর আর কেউ ছিল না। শরীরে জ্বর থাকায় বাড়িতেই ছিলেন। করোনা পরীক্ষাও করা হয়নি তাঁর। শুক্রবার সকালেই তিনি মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন। সকালে সুশীলবাবুর মৃত্যুর খবর আত্মীয় পরিজনরা জানতে পারলেও দেহ দাহ করা তো দূরের কথা ভয়ে বাড়ির ত্রিসীমানায় পা রাখেননি কেউ। এই ঘটনায় ভেঙে পড়েন মৃতের স্ত্রী। এনিয়ে সকাল থেকে এলাকায় কানাঘুষো শুরু হয়। খবর পৌঁছোয় জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি গৌতম দাসের কাছে। তাঁর উদ্যেগে এলাকায় ছুটে যান তৃণমূল নেতা রানা লাহিড়ী। রানাবাবুর তৎপরতায় প্রৌঢ়ের দেহ সৎকারের ব্যবস্থা করা হয়। এরপর রানাবাবু ব্লক প্রসাশনের কাছ থেকে পিপিই সংগ্রহ করে দলীয় কর্মীদের সেটি পরিয়ে বৃদ্ধের দেহ বাড়ি থেকে উদ্ধার করে সৎকারের ব্যবস্থা করেন। রানাবাবুর সঙ্গে পিপিই পরে বৃদ্ধের দেহ সৎকার করতে এগিয়ে আসেন স্থানীয় তৃণমূল নেতা নন্দন সিংহ সহ আরও অনেকে।

এবিষয়ে তৃণমূল নেতা রানা লাহিড়ী জানান, সুকদেবপুর বাসন্তীতলার এক বৃদ্ধ গতকয়েক দিন ধরে জ্বরে ভুগছিলেন। আজ ওই বৃদ্ধ মারা যান। মৃত্যুর পর বাড়িতে কয়েক ঘণ্টা পড়ে থাকলেও দেহ সৎকারে কেউই এগিয়ে আসেননি। বিষয়টি দলের জেলা সভাপতি গৌতম দাস জানতে পারেন। তারপর তিনি বৃদ্ধের সৎকারের ব্যবস্থার কথা বলেন। সেইমতো তাঁর নির্দেশে বিধি মেনে বৃদ্ধের দেহ সৎকারের ব্যবস্থা করা হয়।

- Advertisement -