খেলার মাল-মশলা জোগাবেন মদন

115
ছবিঃ সংগৃহীত।

কলকাতা: খেলা হবে ধরে নিয়ে সব দল নির্বাচনি ময়দানে নেমেছে। একধাপ এগিয়ে বুধবারও হুগলির সাহাগঞ্জের মাঠে সেই খেলায় গোলরক্ষক থাকার কথা ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এ দিনই পূর্ব মেদিনীপুরে কাঁথির মাঠে সেই খেলার আয়োজনে প্রয়োজনীয় মাল-মশলা পৌঁছে দেওয়ার দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিলেন তৃণমূল নেতা মদন মিত্র।

স্বাধীনতা আন্দোলনের অন্যতম পুণ্যভমি কাঁথির পিছাবনি। সেখানে জাতীয় পতাকা বুকে আঁকড়ে ইংরেজদের গুলিতে শহিদ হয়েছিলেন বীর মাতঙ্গিনী। সেখানেই দলীয় সমাবেশে জনসভায় ভাষণে মদনবাবু বলেন, খেলতে গেলে মাল লাগে। আমাকে তালিকা দেবেন, আমি মাল পৌঁছে দেব। মাল সম্পর্কে ধারণা পরিষ্কার করে দেওয়ার জন্য তিনি বলেন, ভোটে যে মাল লাগে, সেই মাল পৌঁছে দেব। দিনে পারব না, রাতে পৌঁছে দেব।

- Advertisement -

পিছাবনি হাইস্কুল লাগোয়া শহিদ স্মৃতি স্তম্ভ প্রাঙ্গণ মাঠে কেন্দ্রীয় সরকারের জনবিরোধী নীতি পেট্রোল, ডিজেল ও রান্নার গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে ও কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে এই জনসভার আয়োজন করা হয়েছিল। সদ্য তৃণমূলে যোগ দেওয়া সিরিয়ালের বাহা বা অভিনেত্রী রণিতা দাসও ওই সভায় বক্তব্য রাখেন। মদনবাবু বলেন, বহিরাগত নেতারা রোজই এরাজ্যে আসছেন। আমি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বলেছিলাম, বহিরাগতরা যাতে ঢুকতে না পারে তার ব্যবস্থা করুন। রাজ্যের সীমান্ত সিল করে দিন। ওরা হাতে মেশিন আর বোমার মশলা নিয়ে ঢুকছে। কিন্তু এবার তাদের সীমান্ত সিল করে ঢোকা আটকানোর কোনও দরকার নেই। ওরা ঢুকুক, ক্ষতি নেই। কিন্তু বেরোনোর রাস্তা খুঁজে পাবে না।

প্রতিটি বুথের জন্য শক্তপোক্ত এজেন্টের তালিকা তৈরি করার পাশাপাশি ভালো খেলোয়াড়ের নামও চাইলেন মদনবাবু। তিনি বলেন, নির্বাচনে যাঁরা খেলতে পারবে এমন ভালো খেলোয়াড়ের নাম আমায় দিন। আমি তাঁদের খেলার প্রশিক্ষণ দেব। খেলতে গেলে মালমশলা লাগবেই। আপনারা জানেন তো নির্বাচনে কী মালমশলা লাগে? সেগুলি পৌঁছে দেওয়ার দায়িত্ব আমার।