পিকে ভাড়াটে, এবার বিদ্রোহের সুর হাওড়ার তৃণমূল বিধায়কের গলায়

0

কলকাতা : তৃণমূল কংগ্রেসের অন্দরে ভোটকৌশলী প্রশান্ত কিশোরের বিরুদ্ধে বিদ্রোহের সুর ক্রমেই বাড়ছে। একইদিনে মন্ত্রীত্ব ত্যাগ করেছেন শুভেন্দু অধিকারী ও বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন কোচবিহার দক্ষিণের বিধায়ক মিহির গোস্বামী। এবার পিকের কাজ নিয়ে ক্ষোভ জানালেন তৃণমূলের প্রবীণ বিধায়ক জটু লাহিড়ি। হাওড়ার শিবপুরের বিধায়ক জটু লাহিড়ির অভিযোগ, পিকের টিমের কাছে তিনি অপমানিত হয়েছেন। পিকে-কে ভাড়াটেও বলেছেন তিনি। জটুবাবু বলেন, ‘হঠাৎ শুনলাম দলকে পরিচালনার জন্য ভোট বিশেষজ্ঞ আসছেন। পিকে না কে! মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের যা ক্ষমতা আছে, বাইরের কাউকে দরকার নেই।’ বিধায়কের স্পষ্ট কথা, ‘প্রশান্ত কিশোর ভাড়াটে। পিকের টিম যখন তখন কর্মসূচির নির্দেশ দেয়। তাঁর বা তাঁর টিমের কথা আমি মানতে বাধ্য নই।’ পিকের টিম কোথা থেকে টাকা পাচ্ছে তা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন জটুবাবু। এছাড়া হাওড়া পুরনিগমে নির্বাচন না করিয়ে প্রশাসক বসানোর সিদ্ধান্তেরও সমালোচনা করেছেন তিনি।

এর আগে পিকের বিরুদ্ধে প্রায় একই রকম অভিযোগ করেছিলেন কোচবিহারের দক্ষিণের বিধায়ক মিহির গোস্বামী। তিনি বলেছিলেন, বাংলার বাইরে থেকে আসা প্রশান্ত কিশোরের কথায় তিনি চলতে পারবেন না। তৃণমূল কংগ্রেস আর মমতার হাতে নেই বলেও মন্তব্য করেছিলেন। হাওড়ার রাজনীতিতে জটু লাহিড়ি অন্যতম পরিচিত নাম। তিনি পাঁচবারের বিধায়ক। তৃণমূলের পুরনো নেতাদের মধ্যে অন্যতম। ফলে তাঁর এহেন বিদ্রোহে জেলায় আলোড়ন ছড়িয়েছে। তবে এর বিরুদ্ধ মতও রয়েছে। তৃণমূলের অন্দরের একাংশের মতে, জটু লাহিড়ির যথেষ্ট বয়স হয়েছে। এবারের বিধানসভা নির্বাচনে তাঁর বদলে অন্য কাউকে টিকিট দেওয়া হতে পারে। সেটা আন্দাজ করেই হয়ত তিনি পিকের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন।

- Advertisement -