মোর্চার ভোটে নজর, তুলসিপাড়ায় জনসভা তৃণমূলের

100

বীরপাড়া: গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার অন্যতম প্রধান ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত বীরপাড়া থানার তুলসীপাড়া চা বাগানে ভোটের প্রচারে মঙ্গলবার জনসভা করল তৃণমূল। সাধারণ মানুষের পাশে কতটা দাঁড়িয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, তুলসীপাড়ার কোইলি ক্লাবের মাঠে এদিন তার ফিরিস্তি দেন বক্তারা। তৃণমূল সূত্রেই জানা গিয়েছে, বিধানসভার অন্যান্য অঞ্চল থেকে কয়েকজন করে তৃণমূলকর্মী নিয়ে যাওয়া হলেও মূলত এদিন নেপালি সম্প্রদায়ভুক্ত তৃণমূল কর্মীদের উপস্থিতিই বেশি ছিল সভায়। এছাড়া গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার বেশ কিছু সমর্থকও ওই সভায় উপস্থিত ছিলেন বলে দাবি তৃণমূলের। এবার গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার কর্মীরা তৃণমূলকে ব্যাপক সহযোগিতা করছেন বলে দাবি দলের ব্লক সাধারণ সম্পাদক নবীন শর্মার। তিনি বলেন, ‘গত বিধানসভা ও লোকসভা ভোটের চেয়ে এবারের পরিস্থিতি সম্পূর্ণ আলাদা। মোর্চার দু’টি গোষ্ঠীর সমর্থন মেলায় এবার চা বাগানে এগিয়ে রয়েছে তৃণমূল।’

এদিন সভায় উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের জেলা সভাপতি মৃদুল গোস্বামী, সহ সভাপতি পঙ্কজ দাস, জেলা সম্পাদক রশিদুল আলম, জেলা সহসভাপতি তথা তরাই ডুয়ার্স প্ল্যানটেশন ওয়ার্কাস ইউনিয়নের সভাপতি নকুল সোনার, চা বাগান তৃণমূল কংগ্রেস মজদুর ইউনিয়নের সহসভাপতি মান্নালাল জৈন, তৃণমূল ছাত্র পরিষদের জেলা সভাপতি সমীর ঘোষ, যুব তৃণমূলের জেলা সভাপতি বাবলু কর, ব্লক সাধারণ সম্পাদক নবীন শর্মা, বিধানসভার কোঅর্ডিনেটর জয়প্রকাশ টোপ্পো প্রমুখ।

- Advertisement -

মাদারিহাটের চা বলয়ে এখনও গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার প্রচুর কর্মী-সমর্থক রয়েছেন। ২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপিকে সমর্থন করেছিল গোর্খা জনমুক্তি মোর্চা। সেবার মাদারিহাটে বিজেপি প্রার্থী ২২ হাজারেরও বেশি ভোটের ব্যবধানে জয়ী হন। আবার ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে মোর্চার অনীত গোষ্ঠী তৃণমূলকে সমর্থন দিলেও অন্তরালে থেকেই বিজেপিকে সমর্থন করার কথা ঘোষণা করেছিলেন মোর্চা সুপ্রিমো বিমল গুরুং। সেবার আলিপুরদুয়ার লোকসভা কেন্দ্রের অন্তর্গত মাদারিহাট বিধানসভা কেন্দ্রে তৃণমূলের চেয়ে ৪৩৮৩৮ ভোটের ব্যবধানে এগিয়ে যান বিজেপি প্রার্থী। ২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনে মোর্চার সমর্থন নিয়ে লঙ্কাপাড়া গ্রামপঞ্চায়েতের ১৭টি বুথের মধ্যে ১৬টি বুথে, হান্টাপাড়া গ্রামপঞ্চায়েতের ১৭টি বুথের মধ্যে ১৬টিতে এবং তুলসীপাড়া চা বাগানের সবগুলি বুথে জয়ী হন বিজেপি প্রার্থীরা। ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনের ফলাফলে দেখা যায়, ওই এলাকাগুলিতে এগিয়ে রয়েছে বিজেপিই।

রাজনৈতিক মহলের বক্তব্য, মোর্চার সমর্থনেই ২০১৬ ও ২০১৯ সালের নির্বাচনে ওই এলাকাগুলিতে এগিয়ে ছিল বিজেপি। কিন্তু এবার মোর্চার দু’টি গোষ্ঠীই তৃণমূলকে খোলাখুলি সমর্থনের কথা ঘোষণা করায় একদিকে যেমন তৃণমূলের সুবিধা হতে পারে তেমন বিজেপিকে বেগ পেতে হতে পারে বলে মনে করছেন রাজনীতির সঙ্গে জড়িত অনেকেই। চা বাগানের বাসিন্দাদের জন্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কি কি করেছেন, এদিন তার ফিরিস্তি তুলে ধরেন তরাই ডুয়ার্স প্ল্যানটেশন ওয়ার্কাস ইউনিয়নের সভাপতি নকুল সোনার। চা বাগানের শ্রমিকদের ব্যাপারে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভূমিকা নিয়ে প্রশংসার পাশাপাশি ধর্ম নিরপেক্ষতা ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ওপর জোর দেন দলের জেলা সভাপতি মৃদুল গোস্বামী। দলের ইস্তাহারে উল্লেখিত উন্নয়নের পরিকল্পনাও তাঁর বক্তব্যে তুলে ধরেন তিনি।