তৃণমূলে সাংগঠনিক রদবদল পরই অসন্তোষের পারদ জেলায়

প্রদীপ চট্টোপাধ্যায়, বর্ধমান: আসন্ন বিধানসভা ভোটকে সামনে রেখে বৃহস্পতিবার তৃণমূল কংগ্রেসের সংগঠনে রদবদল ঘটিয়েছেন নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তুলে দেওয়া হয়েছে দলের জেলা পর্যবেক্ষক পদ। আর তা নিয়েই পূর্ব বর্ধমানের আউশগ্রামের তৃণমূল শিবিরে তৈরি হয়েছে তীব্র অসন্তোষ। শুক্রবার তারই বহিঃপ্রকাশ ঘটল আউসগ্রাম-১ ব্লকের তৃণমূল শিবিরে। নেত্রীর ঘোষণার পরেও অসন্তোষ তৈরি হওয়ায় হতাশ জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব।

আউশগ্রাম-১ ব্লক তৃণমূলের সভাপতি সালেক রহমানের আস্থা পুরোনো নেতৃত্বের ওপরেই। তাঁর ব্যাখ্যা, ২০০৮ সাল থেকে অনুব্রত মণ্ডল বীরভূম জেলার সংগঠন দেখার পাশাপাশি পূর্ব বর্ধমানের আউশগ্রাম, মঙ্গলকোট ও কেতুগ্রাম বিধানসভার পর্যবেক্ষকের দায়িত্ব সামলে এসেছেন। অনুব্রত মণ্ডলের নেতৃত্বেই এই তিন বিধানসভায় এতদিন দল চলেছে। দোর্দণ্ডপ্রতাপ নেতা অনুব্রত মণ্ডল তথা কেষ্টই এতদিন ছিলেন এই তিন বিধানসভা এলাকার শেষ কথা।

- Advertisement -

এখন পর্যবেক্ষক পদ তুলে দিয়ে আউসগ্রাম, ভাতার, মঙ্গলকোট, কেতুগ্রাম মন্তেশ্বর ও মেমারি বিধানসভায় দলের দেখভালের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে সুভাষ মণ্ডলকে। এটাই মনে নিতে পারছেন না সালেক রহমান ও তার অনুগামীরা। তাই করোনা আবহেও সামাজিক দূরত্ব শিকেয় তুলে এদিন আউসগ্রাম-১ ব্লক তৃণমূল সভাপতি সালেক রহমান ও তাঁর অনুগামীরা দলীয় কার্যালয়ে প্রতিবাদে সরব হলেন। প্রতিবাদীদের অনেকের মুখেই ছিল না মাস্ক। গুসকরা শহর তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি কুশল মুখোপাধ্যায়ও এদিনের প্রতিবাদ সভায় শামিল হয়েছিলেন। তবে অনুব্রত ঘনিষ্ট আউশগ্রামের বিধায়ক অভেদানন্দ থান্ডারকে ওই প্রতিবাদ সভায় দেখা যায়নি।

তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বৃহস্পতিবার গোটা রাজ্যে দলের সংগঠনে রদবদল ঘটান। শুধু রাজ্য স্তরের সংগঠনেই নয়, জেলার সংগঠনেও রদবদল ঘটানো হয়েছে। দলনেত্রী বেশ কয়েকটি জেলার দলীয় সভাপতি পদে পরিবর্তন আনলেও পূর্ব বর্ধমান জেলা সভাপতি পদে তিনি রাজ্যের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথের উপরেই আস্থা রেখেছেন। তবে সভাপতির অধীনে তিনজনের একটি সমন্বয় কমিটি তৈরি করা হয়েছে। এই সমন্বয় কমিটিতে প্রাক্তন বিধায়ক উজ্জ্বল প্রামাণিক ছাড়াও বিধায়ক সুভাষ মণ্ডল ও অলোক মাঝি রয়েছেন।

বিধায়ক সুভাষ মণ্ডলকে আউশগ্রাম, ভাতার, মঙ্গলকোট, কেতুগ্রাম, মন্তেস্বর ও মেমারি বিধানসভায় দলের সংগঠন দেখার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। আর তা নিয়েই অসন্তোষের পারদ চড়েছে আউশগ্রামের তৃণমূল শিবিরে। যদিও সালেক রহমান ও কুশল মুখোপাধ্যায় দুজনই এদিন সংবাদমাধ্যমকে জানান, দল যা নির্দেশ দেবে তা তাঁরা মেনে চলবেন। তবে দলের শীর্ষ নেতৃত্বের কাছে তাঁদের দাবি, অনুব্রত মণ্ডলকেই আগের মত আউশগ্রামে দলের দায়িত্ব দেওয়া হোক। যদিও দলের রাজ্য সমন্বয় কমিটির সদস্য তথা জেলা পরিষদের সহ-সভাধিপতি দেবু টুডু বলেন, আমরা দলের নির্দেশ মেনে চলতে বাধ্য। তবে কেউ দাবি করতেই পারেন। দলই তার সিদ্ধান্ত নেবে।