গাড়ি দুর্ঘটনায় প্রাণ হারালেন তৃণমূল ছাত্র পরিষদ নেতা

1447

নিশিগঞ্জ: গাড়ি দুর্ঘটনায় প্রাণ হারালেন তৃণমূল ছাত্র পরিষদের কোচবিহার জেলা সভাপতি নরেন্দ্র দত্ত (৩৪)। মঙ্গলবার রাত দু’টা নাগাদ নিশিগঞ্জে দুর্ঘটনাটি ঘটেছে। সম্প্রতি নরেন্দ্রবাবু তৃণমূল কংগ্রেসের কোচবিহার জেলার মুখপাত্র হিসাবেও দায়িত্ব পান। নরেন্দ্রবাবুর সঙ্গে গাড়িতে থাকা আরও দুজন গুরুতর জখম হয়েছেন। তাঁরা প্রত্যেকেই একটি ছোট গাড়িতে করে মাথাভাঙ্গা থেকে কোচবিহারের দিকে যাচ্ছিলেন।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, কোতোয়ালি থানার ফলিমারি পেট্রোল পাম্প এলাকায় একটি ইলেকট্রিক খুঁটিতে ধাক্কা মারে তাঁদের গাড়িটি। খবর পেয়ে নিশিগঞ্জ ফাঁড়ির পুলিশ তিনজনকেই উদ্ধার করে নিশিগঞ্জ প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে আসে। নিশিগঞ্জ প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্রের চিকিৎসক তন্ময় অধিকারী জানান, স্বাস্থ্যকেন্দ্রে আনার আগেই নরেন্দ্র দত্তের মৃত্যু হয়েছে। মাথায় ও শরীরের কয়েক জায়গায় আঘাত ছিল ওই ব্যক্তির। অপর দুজন ছাত্র পরিষদ কর্মী সম্রাট বর্মন (২৬) ও শুভজিৎ রায়কে (২৪) প্রাথমিক চিকিৎসার পর মাথাভাঙ্গা মহকুমা হাসপাতালে রেফার করা হয়।

- Advertisement -

দুর্ঘটনার খবর পেয়ে রাতেই নিশিগঞ্জ প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ছুটে আসেন তৃণমূল যুব কংগ্রেসের জেলা সাধারণ সম্পাদক অতনু সাহা ও তৃণমূলের মাথাভাঙ্গা ২ ব্লক সহ সভাপতি অধ্যাপক সাবলু বর্মন। অতনুবাবু বলেন, ‘ছাত্র পরিষদের জেলা সভাপতি রাতেই মাথাভাঙ্গার বাড়ি থেকে কোচবিহারের দিকে যাচ্ছিলেন। বিদ্যুতের খুঁটিতে গাড়িটি ধাক্কা মারায় নরেন্দ্রবাবুর মৃত্যু হয় বলে জানতে পেরেছি।’

উত্তরবঙ্গ উন্নয়নমন্ত্রী তথা তৃণমূলের রাজ্য সহ সভাপতি রবীন্দ্রনাথ ঘোষ বলেন, ‘দলের একনিষ্ঠ কর্মীর অকাল মৃত্যুতে সকলেই গভীরভাবে শোকাহত। তাঁর পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাই।’

এদিকে, দুর্ঘটনার পরই গোটা নিশিগঞ্জ এলাকা বিদ্যুতহীন হয়ে পড়ে। স্থানীয় তৃণমূল নেতা সাবলু বর্মন বলেন, ‘পুলিশ ও গ্রামবাসীদের সহযোগিতায় গুরুতর জখম নরেন্দ্রবাবুকে হাসপাতালে নিয়ে আসার আগেই সব শেষ।’ পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, নরেন্দ্রবাবুর মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মাথাভাঙ্গা মর্গে পাঠানো হয়েছে। কিভাবে এই দুর্ঘটনা ঘটল, তা নিয়ে তদন্তে নেমেছে পুলিশ।