পিকে টিমের উপস্থিতিতে অঞ্চল স্তরে প্রশিক্ষন শুরু তৃণমূলের

199

শালকুমারহাট: তৃণমূল কংগ্রেসের আলিপুরদুয়ার-১ ব্লক সভাপতি মনোরঞ্জন দে অসুস্থ থাকায় জনসংযোগের ঘাটতি দূর করতে এবার উদ্যোগী হল পিকে’র টিম। এজন্য এই ব্লকের অঞ্চল ধরে ধরে বাছাই নেতাকর্মীদের প্রশিক্ষন দেওয়ার কৌশল নেওয়া হয়েছে। কিভাবে জনসংযোগ বাড়াতে হবে সেই বার্তা এই সব প্রশিক্ষনে দেওয়া হবে। রবিবার থেকে মনোরঞ্জন দে’র নির্দেশে এই কর্মসূচি শুরু হল। এদিন ব্লকের শালকুমার-১ অঞ্চলে তৃণমূলের প্রশিক্ষন হয়। ঘরে থেকেই এইসব কর্মসূচির রিপোর্ট সংগ্রহ করবেন বলে মনোরঞ্জন দে জানিয়েছেন।

আলিপুরদুয়ার-১ ব্লকের ১০টি গ্রাম পঞ্চায়েত আলিপুরদুয়ার বিধানসভা কেন্দ্রের অন্তর্গত। এই অঞ্চলগুলিতেই বিধানসভা কেন্দ্রের সংখ্যাগরিষ্ট ভোটার রয়েছেন। তৃণমূলের ব্লক সভাপতি মনোরঞ্জন দে ও বিধায়ক সৌরভ চক্রবর্তী এই অঞ্চলগুলিতে লাগাতার জনসংযোগ কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছিলেন। কিন্ত গত ২৪ ডিসেম্বর রাতে শিলিগুড়ি থেকে বাড়ি ফেরার পথে মালবাজারের কাছে গুলিবিদ্ব হন মনোরঞ্জন বাবু। তিনি এখন কিছুটা সুস্থ হয়ে বাড়িতেই বিশ্রামে রয়েছেন। এই পরিস্থিতিতে এইসব এলাকায় বিজেপির তৎপরতা বেড়েছে। মনোরঞ্জন দে’র অনুপস্থিতিতে দলের নীচু স্তরের কর্মীদের মধ্যেও ঢিলেমি শুরু হয়েছে। সামনেই বিধানসভা নির্বাচন। এভাবে দলের যাতে ঘাটতি না হয় সেজন্য তৃণমূলের রাজ্য নেতৃত্ব,দলের ভোট কৌশলী প্রশান্ত কিশোরের প্রতিনিধি ও মনোরঞ্জন দে’র নির্দেশে আলাদা সূচি তৈরি করে অঞ্চল ভিত্তিক প্রশিক্ষন শিবিরের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে সূত্রের খবর। এদিন শালকুমার-১ অঞ্চলের লাল্টুরাম হাই স্কুলে এই শিবির হয়েছে। সেখানে সংশ্লিষ্ট অঞ্চল সভাপতি শ্রীবাস রায়, অঞ্চলের কোঅর্ডিনেটর, কার্যনির্বাহী অঞ্চল সভাপতি, দলীয় পঞ্চায়েত সদস্য, প্রধান, উপপ্রধান সহ প্রত্যেক বুথ সভাপতি সহ সব শাখা সংগঠনের নেতৃত্বরা উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও প্রতি বুথ থেকে এমন পাঁচ জন কর্মীকে ডেকে নেওয়া হয়, যাঁদের স্মার্ট ফোন রয়েছে এবং যাঁরা সোশ্যাল মিডিয়া সম্পর্কে ওয়াকিবহাল। সূত্রের খবর, এই শিবিরে পিকে’র টিমের প্রতিনিধিরাও উপস্থিত ছিলেন। সাংগঠনিকভাবে প্রশিক্ষন দিয়েছেন তৃণমূলের ব্লক সাধারণ সম্পাদক কালীদাস সরকার, ব্লক সহ সভাপতি কৃষ্ণপদ রায় প্রমুখ।

- Advertisement -

একইভাবে সোমবার শালকুমার-২, পূর্ব কাঁঠালবাড়ি,পাতলাখাওয়া,৬ জানুয়ারি তপসিখাতা, বনচুকামারি, ৭ তারিখ পররপার, বিবেকানন্দ-১, বিবেকানন্দ-২ এবং ৮ জানুয়ারি চকোয়াখেতি ও মথুরা অঞ্চলে এই প্রশিক্ষন হবে। দলের ব্লক সাধারণ সম্পাদক কালীদাস সরকার বলেন, ‘পরিবার, পাড়া, বুথ, মৌজা থেকে শুরু অঞ্চল স্তরে জনসংযোগ নিবিড় করতেই নেতাকর্মীদের এই প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। ব্লক সভাপতি, পিকে টিম ও রাজ্য নেতৃত্বের নির্দেশেই এই কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে। আমাদের নেতাকর্মীরা এখন বাড়ি বাড়ি গিয়ে রাজ্য সরকারের কি কি প্রকল্পের সুবিধা বাসিন্দারা পেয়েছেন, কোথাও কারও কোনও পরিষেবা পেতে অসুবিধা হচ্ছে কি না এসব বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ করে খুঁটিয়ে রিপোর্ট তৈরি করবেন।’