গেমস বাতিলের সম্ভাবনা ওড়াচ্ছে না কমিটি

টোকিও : আর মাত্র তিন দিন। এই সময়ে মধ্যেই টোকিও অলিম্পিক বাতিলের সম্ভাবনা ওড়ালেন না আয়োজক কমিটির শীর্ষকর্তা তোশিরো মুতো। অন্যদিকে, আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির প্রধান টমাস বাখের দাবি, অলিম্পিক আয়োজন সংক্রান্ত উদ্বেগের জন্য গত ১৫ মাসে বহুবার নির্ঘুম রাত কাটিয়েছেন তিনি।

টোকিও অলিম্পিকে করোনা সংক্রমণের ধাক্কা ক্রমেই বাড়ছে। মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত গেমসের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত ৭১ জন সংক্রামিতের খোঁজ মিলেছে, এরমধ্যে ৪ জন গেমস ভিলেজে ছিলেন। সংক্রমণ ঠেকানো প্রসঙ্গে মঙ্গলবার এক ইভেন্টে মুতো বলেন, আমাদের পক্ষে ভবিষ্যতে কী হবে তা বলা সম্ভব নয়। তবে আমরা বিষয়টি মাথায় রাখছি। প্রযোজনে অলিম্পিক আয়োজনের সঙ্গে জড়িত সব পক্ষকে নিয়ে বৈঠক করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। গেমস বাতিল হওয়া নিয়ে প্রশ্ন করা হলে তাঁর জবাব, আমরা সব দিকই খতিয়ে দেখছি। ব্যাংক অফ জাপানের প্রাক্তন কর্তা মুতো মুখ খোলার বিষয়ে বেশ সাবধানী বলেই সেদেশে পরিচিত। তাই তাঁর এই মন্তব্য ফাঁকা আওয়াজ নয় বলেই মনে করা হচ্ছে।

- Advertisement -

অন্যদিকে, এদিন আইওসির এক অনুষ্ঠানে বাখ বলেন, গত ১৫ মাসে আমাদের বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে। প্রতিদিন একটা উদ্বেগের পরিবেশ ছিল। আমরা আলোচনা করতাম, বারবার। এমনকি বহু রাতে ঘুমও আসেনি। আমাদের কাঁধে আয়োজনের চাপ ক্রমেই বেড়েছে। এই পর্যায়ে পৌঁছানোর জন্য আমাদের আত্মবিশ্বাস দেখাতে হয়েছে। মুতো অলিম্পিক বাতিলের কথা বললেও বাখের মত, আমরা একটা অন্ধকার সুড়ঙ্গের শেষ দেখতে পেয়েছি। অলিম্পিক বাতিল করা কখনই আমাদের কাছে বিকল্প ভাবনা নয়। আইওসি কখনই অ্যাথলিটদের হাত ছাড়ে না। আমরা যা করি ওদের জন্যই করি। অলিম্পিকের প্রস্তুতি দেখতে জাপানে এসে বিভিন্ন সময় নাগরিকদের বিক্ষোভের সাক্ষী থেকেছেন বাখ। তবে সব বিতর্ক সত্বেও ২৩ জুলাই থেকেই অলিম্পিক শুরুর বিষয়ে অনড় ছিল বাখের নেতৃত্বাধীন আইওসি।

এদিনের অনুষ্ঠানে অলিম্পিকের নতুন নীতি ঘোষণা করলেন বাখ। পুরোনো নীতিতে থাকা দ্রুততম-উচ্চতর-শক্তিশালী (ফাস্টার-হাইয়ার-স্ট্রংগার)-এর পাশাপাশি একসঙ্গে (টুগেদার) শব্দটি যুক্ত করা হয়েছে। এ প্রসঙ্গে বাখের বক্তব্য, বর্তমান পরিস্থিতিতে নতুন নীতি নেওয়া হয়েছে। এর ফলে আমরা নিজেদের বার্তা আরও পরিস্কারভাবে দিতে পারব। আমরা ভাতৃত্ববোধের ওপর বিশেষ জোর দিতে চাই। তবে অলিম্পিক নিয়ে বিতর্ক শেষ হওয়ার নাম নেই। সমালোচনার মুখে পড়ে গেমস থেকে সরে যাওয়ার কথা জানিয়েছেন সঙ্গীতশিল্পী কেইগো কর্নেলিয়াস ওয়ামাদা। স্কুলে বিশেষভাবে সক্ষম সহপাঠীদের হেনস্তা করার কথা অতীতে স্বীকার করেছিলেন তিনি। অলিম্পিকের সঙ্গে তাঁর নাম জড়ানোয় সমালোচনা হয়। পাশাপাশি, নাগরিকদের প্রতিবাদকে সম্মান জানিয়ে অলিম্পিকের প্রচারে সামিল হবে না অন্যতম স্পন্সর টয়োটা মোটরস।