নাবালক চালকরা টোটো নিয়ে ছুটছে জাতীয় সড়কে

408

ইসলামপুর : যেন গোদের উপর বিষফোঁড়া। অবৈধ টোটোর দৌরাত্ম্য তো ছিলই, তার উপর বর্তমানে নজীরবিহীনভাবে ইসলামপুর শহরজুড়ে টোটো নিযে দাপিযে বেড়াচ্ছে নাবালক চালকরা। বিপজ্জনকভাবে যাত্রী পরিবহণ নিযে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে- টোটো দুর্ঘটনায সাধারণ মানুষের প্রাণ গেলে তার দায কে নেবে? ইসলামপুর পুরসভা এই নাবালক চালকদের দাপটের জন্য সরাসরি ট্রাফিক পুলিশকে দায়ী করছে। তবে, কয়েক হাজার অবৈধ টোটো শহরজুড়ে কীভাবে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে, তা নিয়ে পুরসভার ভূমিকাতেও প্রশ্ন রয়েছে। পুলিশ অবশ্য জানিয়েছে, পুরসভা ও পরিবহণ দপ্তর এই মর্মে সুনির্দিষ্ট গাইড লাইন দিলে পুলিশ কড়া ব্যবস্থা নিতে কসুর করবে না। শহরে যানজট এড়াতে অবৈধ টোটোর নিয়ন্ত্রণে পুরসভা কী পদক্ষেপ করে, সেদিকে তাকিযে রয়েছে বিভিন্ন মহল।

টোটো নিযে এমনিতেই ইসলামপুর শহরের নাভিশ্বাস উঠছে। তার উপর বর্তমানে বিপজ্জনক ট্রেন্ড শুরু হয়েছে। ১৪ থেকে ১৫ বছর বয়সী নাবালকরা টোটোতে যাত্রী তুলে যাতাযাত করছে। শহরের ভিতরের রাস্তা তো আছেই, এই নাবালক টোটো চালকরা শহরের মাঝখান দিযে যাওয়া ৩১ নম্বর জাতীয সড়কেও যাত্রী নিযে ছুটছে। পুরসভার মাধ্যমে শহরে চলাচলকারী টোটোর টেম্পোরারি আইডেন্টিটিফিকেশন নম্বর (টিআইএন) নেওয়ার কথা। ইসলামপুর পুরসভা মাত্র ৪২৩টি টোটোকে এই টিআইএন দিয়েছে। অথচ শহরে ২০০০-এর বেশি টোটো চলাচল করছে। খোদ পুরসভাই এই পরিসংখ্যান স্বীকার করেছে। ফলে টিআইএন ছাড়া ১৫০০ বেশি অবৈধ টোটোর বিরূদ্ধে কেন ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না, সেই প্রশ্ন বড় হযে দেখা দিয়েছে।

- Advertisement -

ইসলামপুর পুরসভার চেয়ারম্যান কানাইয়ালাল আগরওযাল বলেন, ‘২০০০-এর বেশি টোটো শহরে চলছে। যার মধ্যে ৪২৩টির টিআইএন  দেওয়া হয়েছে। নাবালক চালকদের টোটো চালানো সত্যিই বিপজ্জনক। তবে এ বিষয়ে পুলিশ নীরব থাকছে কেন? এই মর্মে তো তাদেরই পদক্ষেপ করা উচিত।’ ইসলামপুর থানার আইসি শমীক চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘পুরসভা এই মর্মে পদক্ষেপ করলে পুলিশ আইনশৃঙ্খলা রক্ষায যথাযথ ব্যবস্থা করবে।’

তথ্য- অরুণ ঝা