টোটোপাড়া স্বাস্থ্যকেন্দ্রে স্থায়ী চিকিৎসক নেই

নীহাররঞ্জন ঘোষ, মাদারিহাট : ভুটান পাহাড়ের পাদদেশে টোটোপাড়ায় আদিম টোটো জনজাতির বসবাস। তবে এলাকার একমাত্র প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রটিতে গত এক মাস থেকে কোনও স্থায়ী চিকিৎসক নেই বলে অভিযোগ তুলেছেন টোটোকল্যাণ সমিতির সভাপতি অশোক টোটো। ফলে কেউ অসুস্থ হয়ে পড়লে তাঁদের নিয়ে ২২ কিলোমিটার দূরে মাদারিহাট অথবা ৫০ কিলোমিটার দূরে বীরপাড়া হাসপাতালে ছুটতে হচ্ছে। রাতে কেউ অসুস্থ হলে তাঁদের চিকিৎসা নিয়ে সমস্যায় পড়ছেন এলাকাবাসী। চিকিৎসকের অনুপস্থিতিতে প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রের একজন ফার্মাসিস্ট বা নার্সই তাঁদের ভরসা।

অশোক টোটো জানান, ওই প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে দুজন ডাক্তার থাকার কথা। কিন্তু বহু বছর ধরে একজনই মাত্র চিকিৎসক দেওয়া হয়েছে। এক মাস আগে এই কেন্দ্রের একমাত্র চিকিৎসক অনিন্দ্য চৌধুরী মাদারিহাট গ্রামীণ হাসপাতালে চলে গিয়েছেন। অশোকবাবু আরও বলেন, এমনিতেই টোটোদের আর্থসামাজিক অবস্থা অত্যন্ত খারাপ। প্রায় ৯৯ শতাংশ টোটো পরিবার দিনমজুরি করে সংসার চালাচ্ছেন। সরকারি চিকিৎসা পরিষেবা ছাড়া অন্যভাবে চিকিৎসা করানোর মতো আর্থিক অবস্থা নেই। তিনি জানান, টোটোদের এই পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নতুন চিকিৎসক না দিয়ে স্বাস্থ্যকেন্দ্র থেকে চিকিৎসক চলে যাওয়া কোনওভাবেই মেনে নিতে পারছেন না তাঁরা। তাই একজন ফার্মাসিস্ট ও একজন নার্সের থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা মিললেও গুরুতর অসুস্থ রোগীদের নিয়ে মাদারিহাট, বীরপাড়া বা আলিপুরদুয়ার জেলা হাসপাতালে ছুটতে হচ্ছে তাঁদের।

- Advertisement -

সূত্রের খবর, মাসখানেক আগে এক রোগীর আত্মীয়ে সঙ্গে তৎকালীন ওই চিকিৎসকের ঝামেলা বেঁধেছিল। এরপরই ওই চিকিৎসক প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্র থেকে চলে গিয়ে মাদারিহাট গ্রামীণ হাসপাতালে কাজে যোগ দেন বলে খবর। এই সমস্যার জেরেই মাদারিহাট থেকে একজন চিকিৎসককে মাঝে মাঝে ওই প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে পাঠানো হচ্ছে। মাদারিহাট থেকে আসা ওই চিকিৎসক দিনের বেলা কাজ সেরে বিকেলে আবার ফিরে যাচ্ছেন। ফলে রাতে ওই প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে কোনও চিকিৎসকই থাকছেন না বলে স্থানীয় সূত্রে খবর।

এ ব্যাপারে টোটোপাড়া বল্লালগুড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান আশা এস বোমজান বলেন, প্রায় এক মাস ধরে এই প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে কোনও চিকিৎসক নেই। একজন ফার্মাসিস্ট এবং একজন নার্সের ভরসায় প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রটি চলছে। অবিলম্বে একজন চিকিৎসককে যেন স্থায়ীভাবে এই প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে পাঠানো হয়।

এই ব্যাপারে চিকিৎসক অনিন্দ্য চৌধুরী কোনও মন্তব্য করতে চাননি। অপরদিকে, মাদারিহাট ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিক দেবজ্যোতি চক্রবর্তী বলেন, বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তপক্ষকে জানানো হয়েছে। আশা করছি দ্রুত সমস্যাটি মিটে যাবে। এ বিষয়ে আলিপুরদুয়ারের মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক গিরিশচন্দ্র বেরা বলেন, বিষয়টি রাজ্যে জানানো হয়েছিল। রাজ্য একজন চিকিৎসক দিয়েছে। শীঘ্রই স্থায়ীভাবে একজন চিকিৎসক টোটোপাড়া প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে কাজে যোগ দেবেন।