বাঘ নেই বক্সার জঙ্গলে, মার খাচ্ছে পর্যটন

453

সুমন কাঞ্জিলাল, আলিপুরদুয়ার : গত ২৯ জুলাই আন্তর্জাতিক বাঘ দিবসে ন্যাশনাল টাইগার কনজারভেশন অথরিটি অফ ইন্ডিয়া (এনটিসিএ) বক্সার জঙ্গলকে বাঘশূন্য ঘোষণা করেছে। আর এর প্রভাব এবার পড়তে চলেছে চলতি পর্যটন মরশুমে। প্রতি বছর শীতের মরশুমের শুরুতেই যেভাবে ডুয়ার্সের বক্সা টাইগার রিজার্ভের জঙ্গলে দেশ-বিদেশের পর্যটকদের ঢল নামে এবার তা একবারে অনেকটাই কমে এসেছে। পুজোর সময় থেকে এখনও পর্যন্ত বক্সার জঙ্গলে পর্যটকদের আনাগোনা তেমন দেখা যায়নি বলেই স্থানীয় পর্যটক মহলের অভিমত। তাঁদের আশঙ্কা, বাঘহীন বক্সার জঙ্গলের আকর্ষণ অনেকটাই কমেছে পর্যটকদের কাছে। অন্যান্য বছর পুজোর বন্ধে যেভাবে বক্সা টাইগার রিজার্ভের জয়ন্তী, রাজাভাতখাওয়া, হাতিপোঁতা, বক্সা পাহাড়, সংকোশ প্রভৃতি এলাকায় পর্যটকদের ঢল নামে এবার তা দেখা যায়নি। চলতি বছরে পর্যটন মরশুমের শুরুতেই ডুয়ার্সের বক্সার জঙ্গলে পর্যটকদের এই উপস্থিতির হার রীতিমতো চিন্তায় ফেলেছে স্থানীয় পর্যটন মহলের একাংশকে। তাঁদের অনেকে বলছেন, চলতি বছরে ন্যাশনাল টাইগার কনজারভেশন অথরিটি অফ ইন্ডিয়ার রিপোর্টের প্রভাব এবার সরাসরি পড়তে চলেছে স্থানীয় পর্যটনে। তাঁদের কথায়, ভিনরাজ্য ও বিদেশি পর্যটকদের কাছে টাইগার রিজার্ভ হিসাবে বক্সার জঙ্গলের একটা আলাদা আকর্ষণ রয়েছে। কিন্তু চলতি বছরে ন্যাশনাল টাইগার কনজারভেশন অথরিটি অফ ইন্ডিয়া বক্সা টাইগার রিজার্ভ নিয়ে যে রিপোর্ট প্রকাশ করেছে তা এখন গোটা পৃথিবীই জেনে গিয়েছে। এই পরিস্থিতিতে বাঘশূন্য বক্সার জঙ্গল থেকে মুখ ফিরিয়ে নিতে পারেন দেশ-বিদেশের পর্যটকরা।

গত ২৯ জুলাই আন্তর্জাতিক ব্যাঘ্র দিবস পালিত হয়েছে। ওইদিন ন্যাশনাল টাইগার কনজারভেশন অথরিটি অফ ইন্ডিয়া গোটা দেশের বাঘের সংখ্যা প্রকাশ করেছে। এনটিসিএ-র প্রকাশিত তালিকা অনুযায়ী, ২০১৪ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত ভারতে মোট ৭০০টি বাঘ বেড়েছে। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গের বক্সা টাইগার রিজার্ভের জঙ্গলে একটিও রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারের সন্ধান মেলেনি।  এনটিসিএ-র এই তথ্য সামনে আসার পরেই বক্সার জঙ্গলে বাঘের অস্তিত্বহীনতার কথা গোটা বিশ্ব জেনে যায়। যদিও একথা মানতে রাজি নয় রাজ্য বন দপ্তর। তবে এই পরিস্থিতিতে বক্সার জঙ্গলে অসম থেকে বাঘ নিয়ে আসার পরিকল্পনা নিয়েছে রাজ্য বন দপ্তর। চলতি পর্যটন মরশুমে জয়ন্তী, রাজাভাতখাওয়া, বক্সায় গিয়ে দেখা গেল অন্যবারের তুলনায় এবার পর্যটকদের সংখ্যা অনেক কম। এই প্রসঙ্গে স্থানীয় ইকো টুরিজম গাইড অজয় ভট্টাচার্য বলেন, পুজোর  মরশুমে বক্সার জঙ্গলে পর্যটকদের যে ঢল নামে তা এবার অনেক কম। তবে এবার পুজোর সময় খারাপ আবহওয়ার আশঙ্কায় অনেক পর্যটক ডুয়ার্সমুখো হননি। পুজোর ছুটিতে জয়ন্তী ঘুরতে আসা কলকাতার বাসিন্দা মনোজিত্ রায় বলেন, আমরা প্রকৃতির টানে ডুয়ার্স ঘুরতে এসেছি ঠিকই। কিন্তু বক্সার জঙ্গল যে বাঘশূন্য তার প্রভাব অবশ্যই পর্যটনের ওপর পড়বে। এতদিন আমরা বক্সার জঙ্গলে বাঘের দেখা পেতে পারি বলে একটা আশা ছিল। কিন্তু এনটিসিএ-র রিপোর্টের পর সেই আশা শেষ। ডুয়ার্স টুরিজম ডেভেলপমেন্ট ফোরামের সভাপতি পার্থসারথি রায় বলেন, বক্সা বাঘশূন্য। এর প্রভাব পর্যটনে পড়বে। বক্সা টাইগার রিজার্ভের তকমা যাতে অক্ষুণ্ণ থাকে বন দপ্তরের এখন সেই চেষ্টা করা দরকার। দ্রুত অসম থেকে বাঘ নিয়ে এসে বক্সার জঙ্গলে ছাড়ার ব্যবস্থা করা হোক।

- Advertisement -