ভূগর্ভস্থ জলাধার নির্মাণের কাজ শুরুর দাবি মেখলিগঞ্জের ব্যবসায়ীদের

123

মেখলিগঞ্জ: মেখলিগঞ্জ বাজারে ভূগর্ভস্থ জলাধার নির্মাণের কাজ অবিলম্বে শুরুর দাবি জানালেন ব্যবসায়ীরা। কোচবিহার জেলার সীমান্ত শহর মেখলিগঞ্জ। পুর এলাকায় রয়েছে একটি মাত্র বাজার। মেখলিগঞ্জ পুরসভার কয়েক হাজার মানুষের সঙ্গে পুরসভা সংলগ্ন ব্লকের গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকাগুলির অধিকাংশ মানুষই মেখলিগঞ্জ বাজারের ওপর নির্ভরশীল। মেখলিগঞ্জ বাজার বর্তমানে জতুগৃহে পরিণত হয়েছে। বাজার এলাকায় কোনও জলাধার নেই। মেখলিগঞ্জ বাজারের মধ্যে অবস্থিত রাজ আমলের ইঁদারা দীর্ঘদিন ধরে অব্যবহৃত অবস্থায় থাকার ফলে ইঁদারায় গাছ জন্মেছে। বাজারে একটি জলের রিজার্ভার থাকলেও তা দীর্ঘদিন ধরে বেহাল অবস্থায় পড়ে রয়েছে। ফলে মেখলিগঞ্জ বাজারে অগ্নিসংযোগ ঘটলে বিরাট ক্ষতির মুখে পড়বেন ব্যবসায়ীরা। এই আশঙ্কায় ঘুম উড়েছে এলাকার ব্যবসায়ীদের।

ভূগর্ভস্থ জলাধার নির্মাণের কাজ শুরুর দাবি মেখলিগঞ্জের ব্যবসায়ীদের| Uttarbanga Sambad | Latest Bengali News | বাংলা সংবাদ, বাংলা খবর | Live Breaking News North Bengal | COVID-19 Latest Report From Northbengal West Bengal India

- Advertisement -

মেখলিগঞ্জবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি মেনে বাজারে একটি ভূগর্ভস্থ জলাধার নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেয় চ্যাংরাবান্ধা উন্নয়ন পর্ষদ। ২০২০ সালের জুন মাসে চ্যাংরাবান্ধা উন্নয়ন পর্ষদের তরফে জানানো হয় রাজ্য সরকারের আরবান ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড মিউনিসিপ্যাল অ্যাফেয়ার্সের দপ্তরের তরফে মেখলিগঞ্জ পুরসভা এলাকার বাজারে ভূগর্ভস্থ জলাধার নির্মাণের জন্য আনুমানিক ৮ লক্ষ টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে এবং উক্ত কাজের জন্য টেন্ডার প্রক্রিয়া শেষ হয়েছে। ২০২০ সালের ১১ ডিসেম্বর মেখলিগঞ্জ পুরসভার দায়িত্ব নেয় পরেশচন্দ্র অধিকারীর নেতৃত্বে প্রশাসক বোর্ড। এরপর চলতি বছরের ২ জানুয়ারি মেখলিগঞ্জ পুরসভার কনফারেন্স হলে পুরসভা এলাকার সমস্যা সমাধানে একটি সর্বদলীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত বৈঠকে মেখলিগঞ্জ বাজার এলাকায় কোথায় ভূগর্ভস্থ জলাধার নির্মাণ হবে সেই বিষয়ে আলোচনা করা হয়। ঠিক তার পরের দিন অর্থাৎ ৩ জানুয়ারি মেখলিগঞ্জ পুরসভার তৎকালীন প্রশাসক বোর্ডের চেয়ারম্যান পরেশচন্দ্র অধিকারীর নেতৃত্বে সর্বদলীয় প্রতিনিধিদের একটি দল মেখলিগঞ্জ দমকলকেন্দ্রের প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে মেখলিগঞ্জ বাজারে জলাধার নির্মাণের জন্য জায়গা পরিদর্শন করেন। মেখলিগঞ্জ বাজারে হাইড্র্যান্ট বসানোর বিষয় নিয়েও আলোচনা করা হয়। এরপর বিধানসভা ভোটের ঢাকে কাঠি পড়ে। ফলে মেখলিগঞ্জ বাজারে ভূগর্ভস্থ জলাধার নির্মাণের কাজ শুরু করা যায়নি। অন্যদিকে রবিবার গভীর রাতে মেখলিগঞ্জ মহকুমার হলদিবাড়ি বাজারে আগুন লাগায় ভস্মীভূত হয়ে যায় বেশ কয়েকটি দোকান। এরপরেই নড়েচড়ে বসেন মেখলিগঞ্জের ব্যবসায়ীরা। তাঁদের তরফে মেখলিগঞ্জ বাজারে দ্রুত ভূগর্ভস্থ জলাধার নির্মাণের কাজ শুরু করার দাবি জানানো হয়। মেখলিগঞ্জের ব্যবসায়ী গোপালপ্রসাদ সাহা জানান, তাঁরা হলদিবাড়ির ঘটনায় আতঙ্কিত। বাজার এলাকায় ভূগর্ভস্থ জলাধার নির্মাণের কাজ দ্রুত শুরু করার আবেদন জানান তিনি। জলাধার তৈরি হলে নিজেদের অনেকটা নিরাপদ মনে হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি। পাশাপাশি অগ্নিকাণ্ডে হলদিবাড়ির যেসব ব্যবসায়ীদের ক্ষতি হয়েছে সরকার যাতে তাঁদের আর্থিক সহযোগিতা করে সেই দাবিও জানান তিনি। মেখলিগঞ্জের অপর ব্যবসায়ী শ্যাম মহেশ্বরী জানান, মেখলিগঞ্জ বাজারে দ্রুত ভূগর্ভস্থ জলাধার নির্মাণের কাজ শুরু না হলে হলদিবাড়ির চেয়েও অনেক বেশি ক্ষতি মেখলিগঞ্জে হবে।

এই বিষয়ে পরেশচন্দ্র অধিকারীর বক্তব্য, নির্বাচনের জন্য সমস্ত কাজ বন্ধ রয়েছে। নির্বাচন মিটলে যাতে দ্রুত এই কাজ শুরু করা যায় সেই বিষয়ে বলা হবে। সমস্ত দায়িত্ব এখন মহকুমা শাসকের কাছেই রয়েছে। এই বিষয়ে মেখলিগঞ্জের মহকুমা শাসক রামকুমার তামাংকে প্রশ্ন করা হলেও তাঁর কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।