রায়গঞ্জ শহরের যান যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ শহরবাসী

79

রায়গঞ্জ: রায়গঞ্জ শহরে রাস্তার দু’ধারে সারি সারি দোকান। একেই সংকীর্ণ ফুটপাত, তার ওপর জমজমাট নিত্যকার বাজার। স্বাভাবিক কারণেই গাড়ির গতি কমছে যার ফলে যানজট বাড়ছে। রায়গঞ্জ শহরের অন্যতম ব্যস্ত রাস্তা বিদ্রোহী মোড় থেকে রায়গঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়, শিলিগুড়ি মোড় থেকে ঘড়ি মোড় পর্যন্ত। অন্যদিকে, ঘড়ি মোড় থেকে শিলিগুড়ি মোড় পর্যন্ত রাস্তা দখল করে ঠেলা গাড়ি থেকে শুরু করে অটো টোটোর দাপাদাপি চলতে থাকে। ফলে সারাক্ষণই যানযট লেগেই রয়েছে।

অভিযোগ, ট্রাফিক পুলিশ দেখেও বিষয়টি দেখছে না। সবচেয়ে খারাপ অবস্থা রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ, রায়গঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয় ও রায়গঞ্জ জেলা আদালতের সামনে এই গুরুত্বপূর্ণ রাস্তায় রয়েছে একাধিক প্যাথলজি নার্সিংহোম পূর্ত দপ্তর সদর পোস্ট অফিস, বাস স্ট্যান্ড সহ একাধিক গুরুত্বপূর্ণ জায়গা। ফলে শহরের বাইরে থেকে আসা লোকজনদেরও সংখ্যা তুলনামূলকভাবে বেশি এই অংশে। সরকারি-বেসরকারি মিলে শহরে প্রায় ১০০ বাস চললেও নেই যাত্রীদের প্রতীক্ষালয়। ফলে বাস ধরার জন্য রাস্তায় দাঁড়িয়ে বাস ধরা ছাড়া উপায় নেই।

- Advertisement -

রায়গঞ্জ পৌরসভার ভাইস চেয়ারম্যান অরিন্দম সরকার বলেন, ‘সম্প্রতি মোহনবাটি বাজার এলাকা থেকে ফুটপাত দখলমুক্ত করা হয়েছে। বাকি ক্ষেত্রে অভিযান চলবে।’ পশ্চিম দিনাজপুর চেম্বার অফ কমার্সের সাধারণ সম্পাদক শঙ্কর কুন্ডু বলেন, ‘শহরের বাসিন্দাদের যাতে কোনও দুর্ভোগ পোহাতে না হয় তার জন্য সমস্ত ফুটপাতের পাশাপাশি দোকান গুলি ও সরানো প্রয়োজন।’ এক নার্সারি ব্যবসায়ী শঙ্কর রায়, ফুল ব্যবসায়ী মানিক বর্মন, ফুচকা ও মোমো ব্যবসায়ী কালা কুন্ডু বলেন, ‘পুরসভার তরফে আমাদের একটা ব্যবস্থা করে দিলে ভালো হয় তা না হলে কিভাবে সংসার চালাবো?’

রায়গঞ্জ পৌরসভার চেয়ারম্যান সন্দীপ বিশ্বাস বলেন, ‘মোহনবাটি এলাকার ফুটপাত দখল মুক্ত করা হয়েছে।সম্প্রতি শিলিগুড়ি মোড় থেকে কসবা মোড় পর্যন্ত রাস্তার পাশে বেআইনি দোকান গুলিকে সরিয়ে দেওয়া হবে। এই প্রসঙ্গে রায়গঞ্জ জেলা পুলিশ সুপারকে ফোন করা হলে তিনি কোনও মন্তব্য করতে চাননি।’