দুর্ঘটনা এড়াতে ট্রাফিক সিগন্যাল চালু

146

গাজোল: কথা রাখলেন জেলা পুলিশ সুপার, দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর অবশেষে গাজোল কদুবাড়ি মোড়ে শুরু হতে চলেছে ট্রাফিক সিগন্যালের ব্যবস্থা। যার ফলে একদিকে বিভিন্ন গাড়ির চালকরা যেমন উপকৃত হবেন, তেমনি উপকৃত হবেন পথচারীসহ সাধারণ মানুষ।

এরপর গাজোল থানায় পথ নিরাপত্তা সপ্তাহ পালন করতে এসে জেলা পুলিশ সুপার অলোক রাজোরিয়া জানিয়েছিলেন, খুব শীঘ্রই কদুবাড়ি মোড়ে ট্রাফিক সিগন্যালের ব্যবস্থা চালু করা হবে। সেই অনুযায়ী যুদ্ধকালীন তৎপরতায় শুরু হয়েছে ট্রাফিক সিগন্যাল বসানোর কাজ। আশা করা যাচ্ছে কালীপুজোর সময়ই হয়তো উদ্বোধন করা হতে পারে ট্রাফিক সিগন্যালের।

- Advertisement -

ভৌগোলিক অবস্থান অনুযায়ী গাজোলের গুরুত্ব অপরিসীম। গাজোলের বুক চিরে চলে গিয়েছে ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক। এছাড়াও গাজোলের কদুবাড়ি মোড় থেকে শুরু হয়েছে ৮১ নম্বর জাতীয় সড়ক। যা যোগাযোগ স্থাপন করেছে বিহারের সাথে, এছাড়াও বাংলাদেশের সঙ্গে সংযোগকারী ৫১২ নম্বর জাতীয় সড়কটিও শুরু হয়েছে গাজোল থেকেই। স্বাভাবিকভাবেই স্থলপথে দেশের নানা প্রান্তের সাথে যোগাযোগ রয়েছে গাজোলের। ২৪ ঘন্টা ধরেই যানবাহন চলাচল করে এই সমস্ত জাতীয় সড়কে। সেই দিক থেকে গাজোল কদুবাড়ি মোড়ের অবস্থান অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু এতদিন এখানে কোন ট্রাফিক সিগন্যালের ব্যবস্থা ছিলনা। ট্রাফিক পুলিশ এবং সিভিক ভলান্টিয়াররা যানবাহন চলাচল নিয়ন্ত্রিত করতেন। যার ফলে ঝড় বৃষ্টির সময় চরম সমস্যার মধ্যে পড়তে হতো তাদের। শীতের সময়ও কুয়াশার জন্য যান নিয়ন্ত্রণে সমস্যা হত।

এরপর গত ৮ জুলাই মালদা জেলা পুলিশ আয়োজিত পথ নিরাপত্তা সপ্তাহ উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে গাজোল থানায় এসে সিগনালিং ব্যবস্থা চালুর আশ্বাস দিয়েছিলেন জেলা পুলিশ সুপার। তারপর থেকেই উদ্যোগ নেওয়া শুরু হয়। শুরু হয়ে যায় জোরকদমে কাজ। সেই কাজ এখন শেষের পথে। ট্রাফিক ইনচার্জ এএসআই মনসুর আলি জানালেন জেলা পুলিশ সুপার কদুবাড়ি মোড়ে ট্রাফিক সিগন্যাল বসানোর জন্য উদ্যোগ নিয়েছেন। সিগন্যালের জন্য যে সমস্ত খুঁটিতে আলো লাগানো হবে সেই সমস্ত খুঁটি ও পোঁতা হয়ে গেছে। এরপর শুরু হবে আলো লাগানোর কাজ। সম্ভবত কালি পুজোর সময়ই উদ্বোধন করা হতে পারে ট্রাফিক সিগন্যালের। এর ফলে গাড়ি চালকরা যেমন উপকৃত হবেন তেমনি সাধারণ মানুষও দারুণভাবে উপকৃত হবেন।