নম্বরপ্লেট বিভ্রাটের জেরে ই-চালান গেল রতন টাটার কাছে

205

মুম্বই: একবার দুবার নয়, পরপর তিনবার রতন টাটাকে ই-চালান পাঠাল মুম্বই ট্রাফিক পুলিশ। ট্রাফিক নিয়ম লঙ্ঘনের ঘটনায় মুম্বই ট্রাফিক পুলিশের তরফে পরপর তিনবার জরিমানার ই-চালান পেয়ে হতবাক হয়ে ওঠেন তিনি। ঘটনায় মুম্বই পুলিশের সঙ্গে কথা বলেন খোদ রতন টাটা। প্রকাশ্যে আসে আসল ঘটনা। এরপরেই এক মহিলা ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের হয়।

জানা গিয়েছে, রতন টাটার গাড়ির নম্বর অনুকরণ করে ভুয়ো নম্বরপ্লেট নিজের গাড়িতে লাগিয়েছিলেন এক মহিলা ব্যবসায়ী। তিনি গীতাঞ্জল্লি সমীর শাহ। কাস্টমস হাউস এজেন্ট এবং ফ্রেট ফরওয়ার্ডিং সংস্থা নরেন্দ্র ফরোয়ার্ডার্স প্রাইভেট লিমিটেডের পরিচালক। তাঁর বিরুদ্ধেই ওই ই-চালান নথিভুক্ত হয়েছে।

- Advertisement -

মুম্বই ট্রাফিক পুলিশ পুলিশ সূত্রে খবর, ট্র্যাফিক আইন লঙ্ঘন না করার পরেও জরিমানা বাবদ দুটি ই-চালন পাওয়ার কথা মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরের কার্যালয়ে জানান রতন টাটা। এরপরেই, ট্রাফিক বিভাগের তরফে বকেয়া জরিমানার ই-চালানের সূত্র ধরে জানা যায় গীতাঞ্জল্লি সমীর শাহ রতন টাটার গাড়ির নম্বর প্নেট নকল করে নিজের গাড়িতে লাগিয়েছেন।

পুলিশের যুগ্ম কমিশনার যশাসভী যাদব জানিয়েছেন, ‘অভিযুক্ত যে নম্বর ব্যবহার করছিলেন, তার বিরুদ্ধে তিনটি ই-চালান নথিভুক্ত হয়েছে।’

এদিকে বিষয়টি প্রকাশ্যে আমার পরেই ওই মহিলা ব্যবসায়ীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে ডেকে পাঠানো হয় মাতুঙ্গা পুলিশ স্টেশনে। সেসময় জানা যায়, ভুয়ো গাড়ির নম্বর ব্যবহার করছিলেন ওই মহিলা ব্যবসায়ী। তাঁর কথায়, এটি তাঁর জন্য ‘লাকি’ নম্বর। তাই ব্যবহার করেন তিনি।

অন্যদিকে, যুগ্ম কমিশনার যশাসভী যাদবের তরফে দুই কনস্টেবল আজিজ শেখ এবং সন্দীপ হ্যান্সকে ৫ হাজার টাকা পুরষ্কার স্বরুপ দেওয়া হয় ওই ঘটনার তদন্ত এবং অভিযুক্তের সমস্ত তথ্য খঁজে বার করার জন্য।