দুর্ঘটনায় জখম যুবকের চিকিৎসায় দেরির অভিযোগ, উত্তপ্ত রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ

450

রায়গঞ্জ: দুর্ঘটনায় জখম যুবকের চিকিৎসায় দেরির অভিযোগকে কেন্দ্র করে জখমের মদ্যপ বন্ধু ও হাসপাতালের কর্মীদের মধ্যে তুমুল সংঘর্ষে উত্তপ্ত হয়ে উঠল রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের শল্য বিভাগ। রবিবার গভীর রাতে হাসপাতালের ছতলায় অবস্থিত শল্য বিভাগের মধ্যেই দুপক্ষ হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়ে। জখমের মদ্যপ বন্ধুরা নার্সদের চেম্বারে ঢুকে শ্লীলতাহানি করেন বলে অভিযোগ। মারধর করা হয় দুই শল্য চিকিৎসককে। জখমের আত্মীয় ও বন্ধুরা চিকিৎসার যন্ত্রপাতি ভাঙচুর করে বলে অভিযোগ উঠেছে।

ঘটনায় হাসপাতালের দুজন নিরাপত্তারক্ষী জখম হয়েছেন বলে কর্তৃপক্ষের দাবি। গতকাল গভীর রাতে রায়গঞ্জ শহরের শিলিগুড়ি মোড় এলাকায় এক মদ্যপ যুবক বাইক দুর্ঘটনায় গুরুতর জখম হন। জখম যুবকের নাম উৎপল সরকার (২২)। তাঁর বাড়ি রায়গঞ্জ শহরের এফসিআই মোড় সংলগ্ন কালীতলা এলাকায়। ‌ দুর্ঘটনায় জখম যুবককে মদ্যপ বন্ধুরা উদ্ধার করে রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের শল্য বিভাগে ভর্তি করে। দীর্ঘ সময় পেরিয়ে গেলেও ওই যুবকের চিকিৎসা শুরু হয়নি বলে অভিযোগ রোগীর বন্ধু ও আত্মীয়দের।

- Advertisement -

দুপক্ষের মধ্যে প্রথমে বচসা তারপর মারপিট শুরু হয়। কর্তব্যরত অবস্থায় ছিলেন দুজন শল্যচিকিৎসক ও তিন জন নার্স। নার্সদের শ্লীলতাহানির পাশাপাশি চিকিৎসকদের ও মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। এই ঘটনায় কার্যত রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ক্যাম্পাস। খবর পেয়ে হাসপাতালে যায় রায়গঞ্জ থানার বিশাল পুলিশবাহিনী। পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। ঘটনায় দুজন মদ্যপ যুবককে আটক করে পুলিশ।

জখমের বাবা উত্তম সরকার বলেন, ছেলের পায়ের ওপর দিয়ে লরির চাকা চলে যায়। গতকাল রাত একটা নাগাদ মেডিকেল কলেজের সার্জিক্যাল বিভাগে ভর্তি করি। দীর্ঘক্ষণ চিকিৎসা না হওয়ায় আমরা প্রতিবাদ করেছিলাম। তবে ভাঙচুর-মারপিট করা হয়নি। উলটে হাসপাতালে নিরাপত্তারক্ষীরাই আমাদের উপর চড়াও হয়। কর্তব্যরত নার্সদের বক্তব্য, জখম যুবককে নিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গেই তাঁরা চিকিৎসা শুরু করে দেন। সেই সময় দুজন চিকিৎসক ছিলেন। তাঁরা দ্রুত অপারেশন করার প্রক্রিয়া শুরু করেন।

হাসপাতালের অ্যাসিস্ট্যান্ট সুপার অভিক মাইতি বলেন, পুলিশকে লিখিত অভিযোগ জানানোর পাশাপাশি সিসি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহ করে দেওয়া হয়েছে। রায়গঞ্জ থানার এক পুলিশ আধিকারিক বলেন, ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। দুজনকে আটক করা হয়েছে। তৃণমূল শ্রমিক সংগঠনের সভাপতি তথা স্বাস্থ্যকর্মীদের সংগঠনের নেতা প্রশান্ত মল্লিক বলেন, আমাদের দুজন নিরাপত্তারক্ষীর ওপর হামলা করা হয়েছে। মঙ্গলবার থেকে কর্মবিরতির ডাক দেওয়া হয়েছে। সমস্ত অভিযুক্ত গ্রেপ্তার না হওয়া পর্যন্ত কর্মবিরতি চলবে।