নার্স দিবসে করোনা রুখতে শপথ নিলেন জেলার নার্সেরা

331

দীপঙ্কর মিত্র ও বিশ্বজিৎ সরকার, রায়গঞ্জ: ফ্লোরেন্স নাইটিঙ্গেলের জন্মদিনে মারণব্যাধী করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সেবা করার শপথ নিয়ে দিনটি যথাযোগ্য মর্যাদার সঙ্গে পালন করলেন উত্তর দিনাজপুর জেলার বিভিন্ন ব্লকের সেবিকারা। সকালে ফ্লোরেন্স নাইটিঙ্গলসের প্রতিকৃতিতে মালা দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়ে করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ের শপথ নেন তাঁরা। স্বাস্থ্যবিধি মেনে সাধারণ মানুষের সেবা করার পাশাপাশি করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে জয়ী হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক রবীন্দ্রনাথ প্রধান। তিনি বলেন, ‘করোনা যুদ্ধকে জয় করতেই হবে। এই লড়াইয়ে সেবিকারাই আমাদের প্রধানশক্তি।’

১৯৭৪ সাল থেকে ফ্লোরেন্স নাইটিঙ্গেলের জন্মদিনে ‘ইন্টারন্যাশনাল নার্সেস ডে’ ১২ মে পালিত হয়ে আসছে। চারদিকে মানুষ যখন ঘরবন্দি। সেই সময় সমস্ত ভীতি দূর করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে শুধুমাত্র সেবা করার জন্য এগিয়ে এসেছেন জাসমিন, শোভা, বিনা, মনিকার মতো মেয়েরা। মানুষকে সুস্থ করে বাড়ি ফেরানোই একমাত্র উদ্দেশ্য।

- Advertisement -

এদিন দুপুর তিনটে নাগাদ রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে নার্সিং সুপারিনটেনডেন্টের ঘরের সামনে ফ্লোরেন্স নাইটিঙ্গেলের ছবিতে মালা ও ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন সুপারিনটেনডেন্ট, নার্স, রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজের সহকারী অধ্যক্ষ প্রিয়ঙ্কর রায়, অধ্যক্ষ দিলীপ কুমার পাল ও অন্যান্য আধিকারিকরা। নিজেদের কর্তব্যে অবিচল থেকে কাজ করার শপথ নেন তাঁরা। রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনার মতো বিপদের সময়ে অধিকাংশ আয়াদের দেখা না মিললেও নার্সরা কিন্তু তাদের কর্তব্য এড়িয়ে যেতে পারছেন না। কেউ নিজেদের বাড়িতে থেকে আবার কেউবা ভাড়া বাড়িতে থেকে তাদের রুটিন ডিউটি করে চলেছেন।

সাবধানতা অবলম্বন করে করোনা আক্রান্তের পাশাপাশি অন্যান্য রোগীদেরও দিনরাত পরিষেবা দিয়ে চলেছেন তাঁরা। পাশাপাশি পরিবার-পরিজনদেরও নিরাপদে রাখার জন্য সাবধানতা অবলম্বন করে ডিউটি করছেন। প্রতিটাদিনই তাদের একটা উৎকণ্ঠার মধ্যে দিয়ে দিন কাটছে। কিন্তু সেই উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা দিয়ে নিজেদের দুর্বল না করে মানুষের পাশে কাজ করেই চলেছেন। অনেকেই সংক্রমিত হওয়ার কারণে কখনো কোয়ারান্টিনে গিয়েছেন আবার কখনও তাদের পরিবার পরিজনদের কোয়ারান্টিনে যেতে হয়েছে। তবুও কর্তব্যে অবিচল রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কর্তব্যরত নার্সরা।

এদিন পোস্টকার্ডের মাধ্যমে রায়গঞ্জ মিকিমেঘা হাসপাতালে করোনা সৈনিকদের আন্তর্জাতিক নারী দিবসের শুভেচ্ছা পাঠালেন ডঃ তাপস পাল। এছাড়াও ইসলামপুর, ডালখোলা, কালিয়াগঞ্জ, শিলিগুড়ি, দার্জিলিং, দুর্গাপুর, কলকাতা সহ ১৪টি সরকারি কলেজ ও হাসপাতালের ১০০ জন ডাক্তার ও নার্সদের ‘ভগবান’ সম্মোধন করে চিঠি সহ সন্মাননা পাঠিয়েছেন তিনি। ‘আন্তর্জাতিক নার্স দিবস’ উপলক্ষে ব্যক্তিগত উদ্যোগে রায়গঞ্জের বেশ কয়েকটি কোয়ারান্টিন সেন্টারে নার্সদের সামাজিক দূরত্ব মেনে ফুল ও মিষ্টি পাঠানোর ব্যবস্থা করেন।

ড: পাল তাদের মনোবলকে কুর্নিশ জানিয়ে বলেন, ‘নিজেদের গৃহ-পরিবার নয়, তারা এখন বিশ্ব সংসারের সেবিকা; সমস্ত নিকট এবং প্রিয়জনদের পিছনে ফেলে চরম শারীরিক-মানসিক চাপের মধ্যে কাজ করার জন্য কঠোর পরিশ্রমী এই নারীদের প্রতি অখণ্ড শ্রদ্ধা রইল সমস্ত বিশ্ববাসীর তরফ থেকে।’