মিঠুন চক্রবর্তী জাত গোখরো হলে, মমতা জাত বেদেনী, কটাক্ষ তৃণমূল প্রার্থীর

115

বর্ধমান, ২২ মার্চঃ মিঠুন চক্রবর্তী জাত গোখরো হলে, আমার দিদি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জাত বেদেনী। টুঁটিটা টিপে ধরে খাপিতে ভরে নিয়ে ঢুগডুগি বাজাতে বাজাতে দিদি চলে যাবে। সোমবার এই ভাষাতেই অভিনেতা তথা বিজেপি নেতা মিঠুন চক্রবর্তীকে কটাক্ষ করলেন পূর্ব বর্ধমানের ভাতার বিধানসভার তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী মানগোবিন্দ অধিকারী। তৃণমূল প্রার্থীর এমন বক্তব্যে করতালি দিয়ে তাঁকে স্বাগত জানান কর্মীসভায় উপস্থিত থাকা তৃণমূলের কর্মী ও সমর্থকরা। বিজেপি নেতৃত্ব এই বক্তব্যের পালটা কটাক্ষ করে বলেছেন, মমতা কত বড়ো বেদেনী সেটা ২ মে ভোটের ফল প্রকাশের পরেই খোলসা হয়ে যাবে।

তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে এদিন ভাতার বিধানসভার সাহেবগঞ্জ ব্লকে কর্মীসভার আয়োজন করা হয়। সেই কর্মীসভার প্রধান বক্তা হিসেবে হাজির ছিলেন তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী মানগোবিন্দ অধিকারী। কর্মীসভায় বক্তব্য রাখতে উঠে মানগোবিন্দবাবু অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তীকে তীব্রভাষায় কটাক্ষ করেন। তিনি বলেন, সম্প্রতি কলকাতায় মোদির সভায় বিজেপিতে যোগ দিয়ে অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তী বলেছেন, “উনি নাকি জাত গোখরো, এক ছোবলেই ছবি”। এরপরেই মিঠুন চক্রবর্তীর এই মন্তব্যেট পালটা মানগোবিন্দ বলেন, মিঠুন চক্রবর্তী জাত গোখরো হলে, আমার দিদি (মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়) জাত বেদেনী। টুঁটিটা টিপে ধরে খাপিতে ভরে নিয়ে ঢুগঢুগি বাজাতে বাজাতে চলে যাবে।

- Advertisement -

তিনি আরও বলেন, টিভিতে দেখলাম মিঠুন চক্রবর্তী নাকি এই রাজ্যের ভোটার হচ্ছেন। তিনি নাকি এই রাজ্যে ভোটে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। দলের কর্মীদের স্মরণ করিয়ে দিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী বলেন, “মিঠুন চক্রবর্তী অনেক দলই করেছেন। প্রথমে নকশাল করেছেন। তারপর আমাদের কাছে (তৃণমূল কংগ্রেস) এসেছিলেন। আবার চলে গিয়েছেন। এখন ফের আবার বিজেপিতে গিয়েছেন। হয়তো ওনার কিছু পয়সার দরকার আছে। কারণ বিজেপিতে অঢেল পয়সা। বিজেপি আপনাদের বাড়িতে বাড়িতে অঢেল পয়সা নিয়ে আসবে। মমতাকে হারাতে এখন মোদি, যোগী ও নাড্ডারা ডেইলি প্যাসেঞ্জারি করছেন। তবে
এইসব করে কিছু লাভ হবে না। ওরা যাই বলুক, ওঁদের সব কথাকে দূরে সরিয়ে রেখে ভাতার সহ গোটা বাংলার উন্নয়নের স্বার্থে ও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত শক্ত করতে সবাইকে জোড়া ফুলে ভোট দেওয়ার আহ্বান জানান মানগোবিন্দ অধিকারী। একইসঙ্গে তিনি বলেন, বাংলার সব আসনে প্রার্থী মমতা
বন্দ্যোপাধ্যায়। বাংলায় ফের তৃণমূল সরকারই
ক্ষমতায় আসছে বলে এদিনের কর্মীসভা থেকে তিনি ঘোষণা করেন।