ফালাকাটায় প্রতিষ্ঠিত ও প্রবীণ ব্যক্তিদের সম্মান জানাল তৃণমূল

174

সুভাষ বর্মন, ফালাকাটা: ফালাকাটায় গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় সমাজে প্রতিষ্ঠিত ও প্রবীণ ব্যক্তিদের সম্মান জানাল তৃণমূল কংগ্রেস। শুক্রবার দলের ব্লক সভাপতি সুভাষ রায় নিজেই বেশ কয়েকটি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় গিয়ে তাঁদের সংবর্ধনা জানান।

শিয়রে বিধানসভা নির্বাচন। প্রতিষ্ঠিত ও বয়স্কদের মন পেতেই ফালাকাটায় তৃণমূল কংগ্রেস এই কৌশল নিয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। একইভাবে সংগঠনের অঞ্চল নেতৃত্বরাও এই কর্মসূচি পালন করেছেন। যদিও এই সম্মান জানানো কর্মসূচির সঙ্গে ভোটের কোনও সম্পর্ক নেই বলে তৃণমূলের নেতারা জানিয়েছেন। এদিকে শেষ মুহূর্তে এই সম্মানকে লোক দেখানো বলে কটাক্ষ করেছে বিজেপি।

- Advertisement -

ফালাকাটায় প্রতিষ্ঠিত ও প্রবীণ ব্যক্তিদের সম্মান জানাল তৃণমূল| Uttarbanga Sambad | Latest Bengali News | বাংলা সংবাদ, বাংলা খবর | Live Breaking News North Bengal | COVID-19 Latest Report From Northbengal West Bengal India

প্রয়াত ফালাকাটার বিধায়ক অনিল অধিকারী, দক্ষ সংগঠক শ্যামল ভদ্র, সন্তোষ বর্মনদের সঙ্গে বিধানসভা আসনের প্রতিটি অঞ্চলে বয়স্ক ও প্রতিষ্ঠিত ব্যক্তিদের সুসম্পর্ক ছিল। এখনও প্রবীণদের গলায় ওইসব জননেতার নাম শোনা যায়। কিন্তু প্রবীণ নেতৃত্বের প্রয়াণে ফালাকাটায় এখন দলের রাশ চলে গিয়েছে মাঝবয়সী নতুনদের হাতে। দলের নতুন ব্লক সভাপতি সুভাষ রায় গত কয়েক মাসে বিভিন্ন এলাকা ঘুরে বুঝতে পেরেছেন যে, অঞ্চলে অঞ্চলে বয়স্ক ও প্রবীণ ব্যক্তিদের সঙ্গে স্থানীয় নেতাকর্মীদের দূরত্ব তৈরি হয়েছে। অনেক এলাকাতে এখনও সমাজে প্রতিষ্ঠিত এইসব ব্যক্তিদের অনুগামী ভোট রয়েছে। তাই অভিমান করে থাকা এইসব ব্যক্তি ও তাঁদের অনুগামী ভোটে যাতে বিজেপি থাবা বসাতে না পারে সেজন্য নতুন বছরে তৃণমূল কংগ্রেসের তরফে সংবর্ধনা জানানোর কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়। এজন্য গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার গ্রাম ধরে ধরে সমাজে প্রতিষ্ঠিতদের নামের তালিকা তৈরি করেন দলের কর্মীরা। সেই হিসেবে এদিন এই সংবর্ধনা কর্মসূচি গোটা ফালাকাটায় ব্যাপক সাড়া পড়েছে।

তৃণমূলের ব্লক সভাপতি সুভাষ রায় নিজে গুয়াবরনগর, পারঙ্গেরপার, জটেশ্বর-১, জটেশ্বর-২, ধনীরামপুর গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় উপস্থিত থেকে প্রবীণ বাসিন্দাদের সংবর্ধনা জানান। অন্যান্য গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকাগুলিতে দলের অঞ্চল নেতৃত্বরা এই কর্মসূচি পালন করেন। ব্লক সভাপতি সুভাষ রায় বলেন, ‘এদিন সমাজে প্রতিষ্ঠিত ও প্রবীণ বাসিন্দাদের দলের তরফে উত্তরীয় পরিয়ে পুষ্পস্তবক দিয়ে সংবর্ধনা জানানো হয়। তাঁদের হাতে টিফিনের প্যাকেটও দেওয়া হয়। তৃণমূল কংগ্রেস প্রসঙ্গেও আলোচনা হয়। সরকারি নানা প্রকল্প নিয়েও প্রবীণদের অবগত করানো হয়। আমি নিজে বেশ কয়েকটি অঞ্চলের কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলাম। বাকি এলাকায় অঞ্চল নেতৃত্বরা এই সংবর্ধনা কর্মসূচি পালন করেন।’ এভাবে বয়স্কদের সংবর্ধনা জানানো কর্মসূচির সঙ্গে ভোটের সম্পর্ক রয়েছে কিনা সে প্রসঙ্গে সুভাষবাবু বলেন, ‘এই সামাজিক কাজের সঙ্গে ভোটের কোনও যোগসূত্র নেই। আমরা মানুষের পাশে আছি, সেটাই বড়কথা।’ তবে বিজেপির জেলা সহ সভাপতি জয়ন্ত রায় বলেন, ‘তাঁরা শেষ সময়ে বয়স্ক ও প্রবীণদের সংবর্ধনা জানাচ্ছেন। এখন এই লোক দেখানো কর্মসূচি করেও তৃণমূলের লাভ হবে না। কারণ, ফালাকাটায় বয়স্ক ও প্রতিষ্ঠিত ব্যক্তিদের সঙ্গে আমাদের অনেক আগেই সম্পর্ক তৈরি হয়েছে।’