‘বাংলা নিজের মেয়েকেই চায়’-এর প্রচারে নামতে দলীয় কর্মীদের নির্দেশ তৃণমূলের

134

কলকাতা: ২০২১-এ রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন। তার আগে তৃণমূল-বিজেপি তরজা তুঙ্গে। যার জেরে সরগরম রাজ্য রাজনীতি। একে অপরকে একচুল জমি ছাড়তে নারাজ যুযুধান দুই পক্ষ। নির্বাচনের দিনক্ষণ ঘোষণা না হলেও ঘাসফুল ও পদ্ম-দুই শিবিরেই ভোট যুদ্ধের প্রস্তুতি চলছে জোরকদমে।

এই পরিস্থিতিতে নতুন স্লোগান সামনে এনেছে তৃণমূল। ঘাসফুল শিবিরের স্লোগান ‘বাংলা নিজের মেয়েকেই চায়’। নতুন স্লোগান রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে পৌঁছে দিতে রবিবার থেকেই তৎপরতা শুরু হয়েছে তৃণমূল শিবিরে। তৃণমূলের রাজ্য সভাপতি সুব্রত বকসি ইতিমধ্যেই এবিষয়ে দলের সমস্ত জেলা সভাপতি, চেয়ারম্যান, ব্লক সভাপতি সহ অন্যদের চিঠি দিয়েছেন।

- Advertisement -

দলের পদাধিকারীদের ‘বাংলা নিজের মেয়েকেই চায়’-এর প্রচার চালিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কলকাতা শহরে একাধিক জায়গায় ‘বাংলা নিজের মেয়েকেই চায়’-এর পোস্টার, ব্যানার লাগানো হয়েছে। প্রচারে সোশ্যাল মিডিয়াকেও কাজে লাগানো হচ্ছে।

প্রশান্ত কিশোর ভোটকৌশলী হিসেবে ‘বাংলার গর্ব মমতা’ স্লোগান তুলেছিলেন। তা বেশ জনপ্রিয় হয়েছিল। কিন্তু এবার বিধানসভা ভোটে গেরুয়া শিবিরের মোকাবিলা করতে তৃণমূলনেত্রী নিজেকে ‘বাংলার মেয়ে’ হিসেবেই সামনে আনতে চাইছেন। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা মনে করছেন, বিজেপির ভিন রাজ্য থেকে আসা নেতাদের ‘বহিরাগত’ তকমা দিয়েছেন তৃণমূলনেত্রী। তাই বহিরাগত মোকাবিলায় নিজেকে ‘বাংলার মেয়ে’ হিসেবেই মমতা লড়াইয়ে নামছেন।

শনিবার তৃণমূল ভবনে এই স্লোগানের আনুষ্ঠানিক সূচনা করেন দলের রাজ্য সভাপতি সুব্রত বকসি। উপস্থিত ছিলেন দলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়, রাজ্যের মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়, সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েন, সুখেন্দুশেখর রায় ও কাকলি ঘোষদস্তিদার। স্লোগানের উদ্বোধন করে সুব্রতবাবু বলেন, ’এই স্লোগান নিয়ে তৃণমূলের হাজার হাজার কর্মী বাংলার সমস্ত মানুষের কাছে পৌঁছোবেন। সারা রাজ্য ঘুরে আমাদের কর্মীরা উপলব্ধি করেছেন বাংলার সংস্কৃতি, ঐতিহ্য ও সম্প্রীতি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ে হাতেই সুরক্ষিত। তিনি পারবেন তা রক্ষা করতে।‘

মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায় বলেন, ‘মুখ্যমন্ত্রী ত্যাগ স্বীকার করে রাজনীতি করেন। নারীদের উন্নয়নে তিনি যা কাজ করেছেন তা অন্য কোনও রাজ্য পারেনি। বিভিন্ন প্রকল্পে প্রচুর কাজ হয়েছে। বাংলার মানুষের সঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আত্মিক যোগ রয়েছে। তাই ভিন রাজ্যের কোনও ব্যক্তি নয়, বাংলার বাড়ির মেয়েই হবেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী।‘

এর আগে প্রতিটি নির্বাচনে তৃণমূল নানা ধরনের স্লোগান তুলেছিল। ভোটের সময় ওই স্লোগানকেই সামনে রেখে দলের কর্মীরা প্রচার চালান। ২০০১ সালে ‘হয় এবার, নয় নেভার‘ স্লোগান তুলেছিল তৃণমূল। যা প্রবল জনপ্রিয় হয়েছিল। ২০১১ সালে তৃণমূলের স্লোগান ছিল ‘বদলা নয়, বদল চাই‘। সে বছরই ৩৪ বছরের বাম জমানার পতন হয় ও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মুখ্যমন্ত্রী হন। ২০১৯ সালের লোকসভা ভোটে তৃণমূল স্লোগান দিয়েছিল, ‘ডাক দিয়েছে তৃণমূল, বিজেপি হবে নির্মূল‘। এই স্লোগান জনপ্রিয় হলেও তৃণমূলের আসন সংখ্যা অনেক কমে গিয়েছিল। এবার গেরুয়া শিবিরের মোকাবিলায় ‘বাংলা নিজের মেয়েকেই চায়’ স্লোগান এনেছে তৃণমূল। স্লোগান থেকে এটা পরিষ্কার, ‘বাংলার মেয়ে’ হিসেবেই এবার ভোটের ময়দানে নামছেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।