কোচবিহারে দু’টুকরো তৃণমূল

1957

কোচবিহার: কার্যত দুই ভাগে ভাগ হয়ে গেল তৃণমূল কংগ্রেস। দলের রাজ্য সভাপতি সুব্রত বক্সী ও যুব সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে বিধায়কদের ডাকা বৈঠকে অনুপস্থিত থাকলেন বিধায়ক উদয়ন গুহ সহ তিন বিধায়ক। সবচেয়ে আশ্চর্যের বিষয় বৈঠকে গরহাজির থাকলেন দলের জেলা সভাপতি পার্থপ্রতিম রায়। যা নিয়ে কোচবিহারে তৃণমূলের অন্দরে ও জেলার রাজনৈতিক মহলে ব্যাপক গুঞ্জনের সৃষ্টি হয়েছে।

কোচবিহারে তৃণমূলের গোষ্ঠী কোন্দল দীর্ঘদিনের। কোন্দলের কারণেই গত লোকসভা নির্বাচনে কোচবিহারে তৃণমূলের ভরাডুবি হয়েছে। কোন্দল থামাতে নাটাবাড়ির বিধায়ক তথা উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষকে সরিয়ে জেলা সভাপতি করা হয় বিনয়কৃষ্ণ বর্মনকে। বছরখানেক তিনি জেলা সভাপতি থাকলেও জেলায় কোন্দল না কমায় তাকে সরিয়ে মাস তিনেক আগে দলের রাজ্য নেতৃত্ব জেলা সভাপতি করে পার্থপ্রতিম রায়কে। কিন্তু পার্থপ্রতিম রায়কে জেলা সভাপতি করার পরপরই তার বিভিন্ন কর্মসূচি নিয়ে দলের একাংশ বিধায়ক বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন। এই অবস্থায় পার্থর উদ্যোগে গত ৩ নভেম্বর কোচবিহার শহরের সাহিত্যসভায় তৃণমূলের একটি সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ, বিধায়ক হিতেন বর্মন, জগদীশ বর্মা বসুনিয়া সহ ৫ বিধায়ক অনুপস্থিত থাকেন। জেলায় থেকেও ৮ বিধায়কের মধ্যে ৫ বিধায়ক সভায় অনুপস্থিত থাকায় বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়। যা নিয়ে যথেষ্টই অস্বস্তিতে পড়েন দলের জেলা নেতৃত্ব।

- Advertisement -

সূত্রের খবর, সেই সভায় দলের এক বিধায়ক জেলা সভাপতির ডাকা সভায় যে সমস্ত বিধায়করা উপস্থিত থাকেন নি। তাদের বয়কটের ডাক দেন। এমনকি বিধায়কদের ডাকা ৫ নভেম্বরের বৈঠকে তিনি যাবেন না বলেও সেখানে জানিয়ে দেন। জানা গিয়েছে, জেলা সভাপতিও তাতে সায় দেন। এই অবস্থায় ৫ নভেম্বর বৃহস্পতিবার কোচবিহারে দলের জেলা কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত বৈঠকে মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ, মন্ত্রী বিনয়কৃষ্ণ বর্মন, বিধায়ক হিতেন বর্মন, জগদীশ বর্মাবসুনিয়া, অর্ঘ্যরায় প্রধান উপস্থিত থাকলেও বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন না বিধায়ক উদয়ন গুহ, মিহির গোস্বামী ও ফজলকরিম মিয়া। এমনকী, ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে সভায় অনুপস্থিত থাকেন খোদ দলের জেলা সভাপতি পার্থপ্রতিম রায়। যা নিয়ে জেলা তৃণমূলে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। রাজনৈতিক মহলের মতে জেলা তৃণমূল যে দু টুকরো হয়ে গেছে আজকের ঘটনা থেকে তা পরিষ্কার।