বিজেপিতে কারা যাচ্ছেন, চিহ্নিত করছে তৃণমূল

ফাইল ছবি।

পূর্ণেন্দু সরকার, জলপাইগুড়ি : রাজ্যজুড়ে দলের কিছু বিধায়ক ও নেতা বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন। তাঁদের দ্বারা প্রভাবিত হয়ে কেউ যাতে দল না ছাড়েন সেজন্য তৃণমূল কংগ্রেসের জলপাইগুড়ির সাধারণ সম্পাদক তথা জলপাইগুড়ি জেলা পরিষদের মেন্টর অমরনাথ ঝা সোশ্যাল মিডিয়ায় সবাইকে অনুরোধ জানালেন। অমরনাথের কথায়, কারা অন্য দলে যাওয়ার অপেক্ষায় রয়েছেন তা আমরা জানি। তাঁরা দলের নয়, নিজেদের স্বার্থ দেখছেন। আমরা ওই সমস্ত নেতা ও জনপ্রতিনিধিকে চিহ্নিত করার কাজ শুরু করেছি। ওই নেতা-জনপ্রতিনিধিদের কথায় কেউ যাতে দল না ছাড়েন, আমার লেখায় সেই বার্তাই দিয়েছি। তৃণমূলের জলপাইগুড়ির সভাপতি কৃষ্ণকুমার কল্যাণী অবশ্য বিষয়টি সেভাবে গুরুত্ব দিতে রাজি নন। তিনি বলেন, রাজনৈতিক ও সাংগঠনিক পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে আমরা ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে জেলা কমিটির বৈঠক ডাকছি।

সভাপতি হিসাবে তৃণমূলের জলপাইগুড়ি জেলার দায়িত্ব পাওয়ার পর কল্যাণী আগেকার ব্লক কমিটিগুলি ভেঙে দেন। এই সূত্রেই নাগরাকাটার প্রাক্তন ব্লক সভাপতি অমরনাথ ঝা সহ বেশ কয়েকজন প্রাক্তন ব্লক সভাপতির সঙ্গে তাঁর দূরত্ব তৈরি হয়। সেই অমরনাথ এবারে ফের খবরে। সোশ্যাল মিডিয়ায় তিনি লিখেছেন, বাংলার কিছু বিধায়ক, কিছু নেতা বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন। স্বার্থপর ওই নেতাদের পিছনে ছুটবেন না। আজ যে দিদি আমাদের এত সম্মান দিয়েছেন আমরা তাঁর নির্দেশ মেনেই চলব। কিছু নেতা আমাদের অস্পৃশ্য বলে মনে করেন। কত পরিচ্ছন্ন নেতা অন্য দলে চলে যাচ্ছেন তা কয়েকদিনের মধ্যেই বেরিয়ে আসবে। আমাদের মতো মাটির কাছাকাছি থাকা নেতারা কেউই দল ছাড়বেন না। সোশ্যাল মিডিয়ায় অমরনাথের এই পোস্টকে সমর্থন জানিয়ে দলীয় কর্মী থেকে প্রাক্তন ব্লক সভাপতিদের অনেকেই তৃণমূলে থাকার পক্ষেই মত দিয়েছেন। সম্প্রতি ময়নাগুড়ির দলীয় বিধায়ক অনন্তদেব অধিকারী দলের জেলা সভাপতির নামে সোশ্যাল মিডিয়ায় বিতর্কিত মন্তব্য করে সমালোচনা করেছিলেন। এই সূত্রে ময়নাগুড়ির বিধায়ক বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন বলে দাবি উঠেছিল। এ বিষয়ে কল্যাণীর প্রতিক্রিয়া, এসব ভিত্তিহীন কথা বলে বিজেপি বাজার গরম করতে চাইছে।

- Advertisement -

তৃণমূল সূত্রে খবর, নেতাদের অনেকে বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন বলে নেতৃত্ব আশঙ্কা করছেন। তবে তাঁরা পদত্যাগী মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীর সঙ্গে যুক্ত হচ্ছেন কি না সে বিষয়ে জেলা তৃণমূল এখনই কিছু বলছে না। এ বিষয়ে পরবর্তী পদক্ষেপ জেলা কমিটির বৈঠকে ঠিক করা হবে বলে নেতৃত্ব জানিয়েছেন। অন্যদিকে, আলিপুরদুয়ারের বিধায়ক সৌরভ চক্রবর্তী বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন বলে শনিবার বিজেপির রাজ্য যুব মোর্চা সভাপতি সৌমিত্র খাঁ জলপাইগুড়িতে দাবি জানিয়েছিলেন। এ বিষয়ে সৌরভবাবুর প্রতিক্রিয়া, এসব পাগলের প্রলাপ ছাড়া কিছুই নয়। তৃণমূলে আছি, এখানেই থাকব।