পরিবার পরকীয়া মেনে না নেওয়ায় গলাকেটে আত্মহত্যার চেষ্টা দেওর ও বৌদির 

750

বর্ধমান ২৫ অক্টোবরঃ নিজের বউদির সঙ্গে পরকীয়া সম্পর্কে  জড়িয়ে পড়েছিল দেওর। সম্পর্কের গভীরতা বাড়ার পর তারা বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলে। একথা জানার পর প্রবল আপত্তি তোলেন পরিবারের লোকজন।  সেই আপত্তি মেনে নিতে না পেরে  বৃহস্পতিবার রাতে একসঙ্গে গলাকেটে আত্মহত্যার চেষ্টা করে দেওর ও বৌদি। ঘটনা জানাজানি হতেই তুমুল চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে পূর্ব  বর্ধমানের কাটোয়ার  ভালশুনি গ্রামে । দেওর ও বৌদি দুজনকেই উদ্ধার করে ভর্তি করা হয়েছে কাটোয়া মহকুমা হাসপাতালে। পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।
স্থানীয় সূত্রে  জানা গিয়েছে, ভালশুনি  গ্রামের বাসিন্দা রতন দাসের সঙ্গে দুই বছর আগে মেমারির সামন্তী গ্রাম নিবাসী তরুণী লক্ষীর বিয়ে হয়। তাদের ৮ মাসের একটি সন্তানও রয়েছে। রতনের ছোট ভাই রণজিৎ ভিন রাজ্যে কাজ শেষ করে কয়েক মাস  আগেই বাড়ি ফেরে। এরপর  থেকেই সে বৌদির সঙ্গে পরকীয়া সম্পর্কে  জড়িয়ে পড়ে। সম্প্রতি তারা  বিয়ে করারও  সিদ্ধান্ত নেয়। একথা জানার পরেই পরিবারের সকলে তীব্র আপত্তি জানায়। এরপরেই বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় তারা বাড়ি থেকে বেরিয়ে কিছুটা দূরে গিয়ে ধারাল অস্ত্র দিয়ে নিজেদের গলা কেটে আত্মহত্যা করে। স্থানীয় লোকজন তাদের রক্তাক্ত অবস্থায় দেখতে পেয়ে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। খবর পেয়ে ছুটে আসেন পরিবারের লোকজনও।