দুঃস্থ পড়ুয়াদের পাশে দাঁড়াল পড়ুয়ারাই, নজির তুফানগঞ্জ মহাবিদ্যালয়ের

287

শিশির গুহ, তুফানগঞ্জ: কোভিড পরিস্থিতিতে চলা লকডাউন পরিস্থিতিতে আর্থিক দুরবস্থার দরুণ কলেজে ভর্তি না হতে পারা পড়ুয়াদের পাশে দাঁড়াল তুফানগঞ্জ মহাবিদ্যালয় স্টুডেন্ট ইউনিয়ন। মহাবিদ্যালয়ে ভর্তি হতে না পারা দ্বিতীয় ও তৃতীয় বর্ষের ১৭৯ জন পড়ুয়াকে ভর্তির জন্য নগদ এক হাজার টাকা দেওয়া হল স্টুডেন্ট ইউনিয়নের তরফে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে স্টুডেন্ট ইউনিয়নের তরফে ভর্তি না হতে পারা পড়ুয়াদের হাতে নগদ এক হাজার টাকা ভর্তির খাম তুলে দেন তুফানগঞ্জ মহাবিদ্যালয়ের পরিচালন সমিতির সভাপতি তথা তুফানগঞ্জ পুরসভার প্রশাসক মণ্ডলীর চেয়ারম্যান অনন্তকুমার বর্মা। এদিনের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন তুফানগঞ্জ মহাবিদ্যালয়ের পরিচালন সমিতির সদস্য তথা তুফানগঞ্জ মহকুমা ক্রীড়া সংস্থার সচিব চানমোহন সাহা, দলেন রায়। মহাবিদ্যালয়ের স্টুডেন্ট ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সমীর দাস বলেন, ‘করোনা আবহ চলছে। সংক্রমণও বাড়ছে। এমতাবস্থায় সকলকে সামাজিক দূরত্ব মেনে চলা দরকার। করোনা আবহের জন্য এই বছর দীর্ঘ সময় লকডাউন ছিল। অনেক পড়ুয়ার পারিবারিক আর্থিক অবস্থা ভালো নয়। এজন্য অনেকে এবার মহাবিদ্যালয়ের দ্বিতীয় ও তৃতীয় বর্ষে ভর্তি হতে পারেননি। তাই এই উদ্যোগ। আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে কোনওরকমের অনুষ্ঠান মহাবিদ্যালয় চত্বরে করব না। আগামী ২৩ ডিসেম্বর আমাদের মহাবিদ্যালয়ের বার্ষিক অনুষ্ঠান হওয়ার কথা ছিল। আমরা ওই বার্ষিক অনুষ্ঠান না করে ভর্তি হতে না পারা ১৭৯ জন পড়ুয়াকে এক হাজার টাকা দিয়েছি ভর্তির জন্য।’ ভর্তি হতে না পারা তুফানগঞ্জ মহাবিদ্যালয়ের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র ইয়াসিন আরাফাত বলেন, ‘করোনা আবোহে আর্থিক দুরবস্থায় পড়েছি। তাই টাকার অভাবে ভর্তি হতে পারি নি। স্টুডেন্ট ইউনিয়নের এগিয়ে আসায় ভর্তি হতে পারলাম। এজন্য তাঁদেরকে ধন্যবাদ জানাই।’

- Advertisement -

তুফানগঞ্জ মহাবিদ্যালয়ের পরিচালন সমিতির সভাপতি অনন্তকুমার বর্মা বলেন, ‘স্টুডেন্ট ইউনিয়নের তরফে এই প্রস্তাব দেওয়া হলে, আমরা তাতে সহমত পোষণ করেছি।’ প্রসঙ্গত, গত ৫ অক্টোবর থেকে ১৫ অক্টোবর ভর্তির সময়সীমা ছিল। তুফানগঞ্জ মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ দেবাশিস চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘যারা ভর্তি হতে পারেননি, তাঁদের আবার ভর্তির সুযোগ দেওয়া হবে।’