লকডাউনে বন্ধ পরিবহন, বাইকে করে নকল মদ পাচার করতে গিয়ে ধৃত ২

581

ফাঁসিদেওয়া, ৩ মেঃ বিদেশী কোম্পানীর স্টিকার লাগানো নকল মদ পাচারের আগে ফাঁসিদেওয়া থানার ঘোষপুকুর ফাঁড়ির পুলিশ ২জনকে গ্রেপ্তার করল। শনিবার গভীর রাতে গোপন সূত্রের খবরের ভিত্তিতে ফাঁসিদেওয়া ব্লকের ময়লানিজোত এলাকায় অভিযুক্তদের ধাওয়া করে পুলিশ পাকড়াও করে। ধৃত বুবাই সরকার (৪৬) আগে শিলিগুড়ির বাসিন্দা ছিল। এখন সে জলপাইগুড়ির পান্ডাপাড়ায় বাড়ি ভাড়া নিয়ে থাকত এবং রণজিৎ বিশ্বাস (৪১) আমবাড়ি থানার সারিআম এলাকার বাসিন্দা। তাদের কাছ থেকে কয়েকটি কার্টুনে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের নকল মদ উদ্ধার হয়েছে। পুলিশ পাচারে ব্যবহৃত মোটরবাইকটি বাজেয়াপ্ত করেছে। রবিবার ধৃতদের শিলিগুড়ি মহকুমা আদালতে তোলা হয়েছে।

লকডাউন শুরু হতেই বিধাননগর সংলগ্ন বিহার সময় সীমান্ত সিল করে দেওয়া হয়েছে। বন্ধ রয়েছে পরিবহনও। সেই কারণে সম্প্রতি নকল মদের বড় পাচার চক্র অনেকটা নিষ্ক্রিয় হয়ে গিয়েছে বলে বিশ্বস্ত সূত্রের খবর। এরপর থেকেই নকল মদের কারবারিরা চুপিসারে মোটরবাইক এবং অন্যান্য পদ্ধতি কাজে লাগিয়ে সামান্য পরিমানে কারবার চালাচ্ছিল। এই খবর মোতাবেক ঘোষপুকুর ফাঁড়ির ওসি অভিজিৎ বিশ্বাস বিধাননগর সংলগ্ন পশ্চিম মাদাতী টোল প্লাজা সংলগ্ন এলাকায় অভিযান শুরু করেন। এরপর ওই রাতে সন্দেহজনকভাবে মোটরবাইক আটক করতেই ওই নকল মদ উদ্ধার হয়েছে। পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদে ধৃতরা ওই মদ জলপাইগুড়িতে পাচারের উদ্দেশ্যে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল বলে স্বীকার করেছে। পুলিশের অনুমান ওই নকল মদের বাজার প্রায় ২০ হাজার টাকা। এরপরই ধৃতদের গ্রেপ্তার করে ইতিমধ্যেই এই চক্রে আর জড়িত কিনা তা নিয়ে তদন্ত শুরু করা হয়েছে।

- Advertisement -

ধৃত বুবাই সরকার এরআগেও নকল মদের কারবারেই জড়িত ছিল বলে পুলিশ সূত্রের খবর। মূলত নকল মদের চক্রে বিহারের শ্রমিক থেকে শুরু করে অনেকেই জড়িত রয়েছে। এছাড়াও স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তিত্বের মদতও রয়েছে বলে বিভিন্ন সময় অভিযোগ উঠে এসেছে। লকডাউনের আগে এই চক্র আরও সক্রিয়ভাবে বিধাননগর সংলগ্ন বিহার সীমান্ত অপারেট করা হত। বড় বড় গাড়িতে বোঝাই হয়ে উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন গ্রামে কাঁচা স্পিরিটের তৈরি বিষ তরল পৌঁছে যেত। কিন্তু, এখন বাইকে করে পাচারের করতে গিয়ে তা পুলিশের হাতে ধরা পড়ে যায়। নকল মদ পাচার বিভিন্ন মহলে উদ্বেগ দেখা দিয়েছে। ডিএসপি (গ্রামীণ) অচিন্ত্য গুপ্ত জানিয়েছেন, লকডাউনের মাঝে এধরণের অসামাজিক কার্যকলাপের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে৷ ইতিমধ্যেই এই চক্রে জড়িত আরও কয়েকজনের নাম জানা গিয়েছে। খুব শীঘ্রই তাঁদের বিরুদ্ধেও আইনী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।