সাপের কামড়ে ওঝা ভরসা, পুলিশ কর্মী সহ মৃত ২

351

রায়গঞ্জ, ২ অক্টোবরঃ ওঝাকে দিয়ে সাপে কামড়ানো অসুস্থ পুলিশ কর্মীকে চিকিৎসা করাতে গিয়ে বিপাকে পড়লেন পরিবারের লোকেরা। পরে অসুস্থ পুলিশ কর্মীকে রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু, তাঁকে বাঁচানো সম্ভব হয়নি। মৃত চিত্তরঞ্জন দাস (৩২) কালিয়াগঞ্জ থানার কলেজপাড়া সংলগ্ন কৃষ্ণবাটির বাসিন্দা ছিলেন। বৃহস্পতিবার রাতে বিষধর তাঁর বাম হাতে সাপ ছোবল দেয়। এলাকার এক ওঝার কাছে ঝাড়ফুঁক শুরু করেন। অবস্থার ক্রমশ অবনতি হওয়ায় প্রথমে কালিয়াগঞ্জ স্টেট জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে তাঁকে রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়েছিল। তবে, সেখানেও তাঁকে বাঁচানো সম্ভব হয়নি। এদিন মৃতদেহ ময়নাতদন্তের পর রায়গঞ্জ থানার পুলিশ পরিবারের হাতে তুলে দিয়েছে।

মৃতের দাদা কার্তিক দাস বলেন, ঘরের ভিতরে খাটের নিচে কাঠের স্তুপ সরাতে গিয়ে বিষধর সাপ ছোবল দেয়। সাপটিকে বন্দি করে ওঝার কাছে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। ঝাড়ফুঁকেও কোনও কাজ হয়নি। ওঝাকে সরিয়ে ভাইকে গাড়িতে বসিয়ে হাসপাতালের উদ্দেশ্যে রওনা দেই। কার্তিক বাবু আরও বলেন, কালিয়াগঞ্জ হাসপাতালে নিয়ে গেলে, তখনও ভাই বেঁচেছিল। চিকিৎসাও শুরু হয়। পরে রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজে নিয়ে যাওয়া হলে, চিকিৎসক তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। চিত্তরঞ্জন বাবু কর্ণজোড়া জেলাশাসক আবাসনের নিরাপত্তারক্ষী হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

- Advertisement -

অন্যদিকে, রায়গঞ্জ থানার গোরাহারের বাসিন্দা তৈমুর শেখ (৩৫) নামে এক ব্যক্তিকে শুক্রবার একটি বিষধর সাপ ছোবল দেয়। স্থানীয় ওঝার বাড়িতে সাপে কামড়ানো ব্যক্তিকে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেও কাজ না হওয়ায়, পরে রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগে তাঁকে ভর্তি করা হয়। কিছুক্ষণ চিকিৎসার পর ওই ব্যক্তির মৃত্যু হয়। ময়নাতদন্তের পর রায়গঞ্জ থানার পুলিশ মৃতদেহ পরিবারের হাতে তুলে দিয়েছে। মৃতের স্ত্রী মঞ্জুরা বেগম বলেন, ওঝার ভরসায় না থেকে হাসপাতালে নিয়ে গেলে তাঁর স্বামীর এই অবস্থা হত না।

বিজ্ঞান মঞ্চের মতন সংগঠনের তরফে সচেতনতা প্রচার চালানো হলেও বাসিন্দাদের মধ্যে সততার অভাব রয়েছে। প্রত্যন্ত এলাকার বাসিন্দাদের মধ্যে সাপের কামড়ে ব্যক্তিকে সুস্থ করতে ওঝার ওপর নির্ভরশীল হওয়ার মতন অন্ধবিশ্বাস দূর করা যায়নি। পাশাপাশি, রায়গঞ্জ শহরের বীরনগরের বাসিন্দা মালিনী গাঙ্গুলী (২৪) সাপের কামড়ে অসুস্থ হয়ে রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের মহিলা মেডিসিন বিভাগে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।