অ্যাম্বুল্যান্সে তুলে জোরে গান চালিয়ে নাবালিকাকে গণধর্ষণ, গ্রেপ্তার দুই চালক

288

ফারাক্কা: অ্যাম্বুল্যান্সের ভেতরে গান চালিয়ে গণধর্ষণ। মুখ বেঁধে শুক্রবার সারারাত পাশবিক অত্যাচারের পর শনিবার সকালে একটি মাঠের মধ্যে অচৈতন্য অবস্থায় ওই নাবালিকাকে ফেলে পালায় দুষ্কৃতীরা। ঘটনাটি ঘটেছে মালদায়। এই ঘটনায় করিম শেখ এবং সাদেক শেখ নামে দুই অ্যাম্বুল্যান্স চালককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এদিন সকালে তাদের জঙ্গিপুর আদালতে নিয়ে যাওয়া হয়।

জানা গিয়েছে, ফারাক্কায় জাফরগঞ্জে মামার বাড়িতে বেড়াতে এসেছিল মেয়েটি। বাড়ি থেকে তাকে ফিরিয়ে নিতে এলেও সে যেতে চায়নি। এই নিয়ে মায়ের সঙ্গে মামারবাড়িতে কথা কাটাকাটির জেরে সে গতকাল বিকেলে আচমকাই বাড়ি থেকে বেরিয়ে যায়। একা ঘুরতে দেখে এক অ্যাম্বুল্যান্স ড্রাইভার তাঁকে বাড়ি পৌঁছে দেওয়ার প্রস্তাব দেয়। এরপরই মেয়েটিকে গাড়িতে তুলে নির্মম অত্যাচার চালায় ওই অ্যাম্বুল্যান্স চালক ও তার সঙ্গী। অভিযোগ, অভিযুক্তরা ওই নাবালিকার মুখে ব্ল্যাক টেপ লাগিয়ে মিউজিক সিস্টেম জোরে গান চালিয়ে সারারাত নির্যাতন করে। শেষে ভোর চারটে নাগাদ মালদার পিটিএস টাউনশিপ মোড়ে রেলগেটের পাশে ময়দানে তাকে ফেলে দিয়ে পালিয়ে যায়। স্থানীয় সিভিক ভলান্টিয়ার এবং আশেপাশের লোকজন মেয়েটিকে উদ্ধার করে প্রথমে বৈষ্ণবনগর থানা তারপর ফারাক্কা থানায় নিয়ে আসে।

- Advertisement -

মুর্শিদাবাদের পুলিশ সুপার ওয়াই রঘুবংশী বলেন, ‘ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। ইতিমধ্যেই দু-জনকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে।‘ এ প্রসঙ্গে জঙ্গিপুর আদালতের ভারপ্রাপ্ত এপিপি রাতুল বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, পকসো আইনে দুজন আসামীকে চালান করা হয়েছিল। তাদের জন্য সাতদিনের রিমান্ড চাওয়া হয়। তবে পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত।