বালি বোঝাই ডাম্পারের পিছনে চারচাকা গাড়ির ধাক্কা, মৃত ২

447

পূর্ব বর্ধমান: পথ দুর্ঘটনায় পূর্ব বর্ধমানের কাটোয়ায় মৃত্যু হল এক কিশোরী সহ দুজনের। জখম হয়েছেন কিশোরীর দাদুও। মৃতরা হল নাজমা খাতুন(১৬) এবং দেবার্ঘ্য দাস(৪০)। নাজমার বাড়ি মুর্শিদাবাদ জেলার বেলেডাঙ্গা থানার বেগুনবারি এলাকায়। মৃত দেবার্ঘ্যর বাড়ি বীরভূম জেলার সিউড়ির দত্তপুকুর এলাকায়। আশঙ্কাজনক অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন নাজমার দাদু শেখ শাহজাহান। তাঁরও বাড়ি বীরভূমের সিউড়িতে। বুধবার কাটোয়া মহকুমা হাসপাতাল পুলিশ মর্গে দুটি মৃতদেহের ময়নাতদন্ত হয়। দুর্ঘটনাগ্রস্ত গাড়িটি আটক করে পুলিশ দুর্ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে খবর, মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮টা নাগাদ কাটোয়ার এটিকেকে রোডে গড়াগাছা এলাকায় দুর্ঘটনাটি ঘটেছে। একটি চারচাকা গাড়িতে চেপে নাজমা খাতুন তাঁর দাদু শেখ শাহজাহান ও দেবার্ঘ্য দাস নদীয়ার কৃষ্ণনগরের দিকে যাচ্ছিলেন। একই সময়ে একটি বালি বোঝাই ডাম্পার কৃষ্ণনগরের দিকে যাচ্ছিল। গড়াগাছার কাছে ডাম্পারটিকে ওভারটেক করতে গিয়ে চারচাকা গাড়িটি নিয়ন্ত্রন হারিয়ে ডাম্পারের পিছনে সজোরে ধাক্কা মারে। এই দুর্ঘটনায় গুরুতর জখম হন আরোহী নাজমা ,দেবার্ঘ্য ও শেখ শাহজাহান। দুর্ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ ও স্থানীয় মানুষজন ঘটনাস্থলে পৌছায়। রক্তাত অবস্থায় তিনজনকেই উদ্ধার করে নিয়ে যাওয়া হয় কাটোয়া মহকুমা হাসপাতালে। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক নাজমা খাতুন ও দেবার্ঘ্য দাসকে মৃত ঘোষনা করেন।

- Advertisement -

মৃতদের পরিবার সদস্যরা জানান, দেবার্ঘ্য দাস ও শেখ শাহজাহান সম্পর্কে দুই বন্ধু। তাঁরা ঠিকাদারির কাজ করেন। দশম শ্রেণীর ছাত্রী নাজমা সম্পর্কে শেখ শাহজাহানের নাতনি। কয়েকদিন আগে সে তাঁর দাদুর বাড়িতে বেড়াতে আসে। মঙ্গলবার দেবার্ঘ্য ও শাহজাহান যখন ব্যবসার কাজে কৃষ্ণনগর যাচ্ছিলেন, তখন তাঁদের সঙ্গে বেড়াতে যাবে বলে নাজমা চারচাকা গাড়িতে চড়ে বসে। পথে গড়াগাছা এলাকায় ভয়াবহ দুর্ঘটনাটি ঘটে যায়।