ঘোষণা হলেও দুই বিশ্ববিদ্যালয়ে পঠনপাঠন শুরু হয়নি

শুভঙ্কর চক্রবর্তী, শিলিগুড়ি : ঘোষণা হয়েছিল দুবছর আগে। বছর দেড়েক আগে বিধানসভায় পাস হয়েছে আইন। বছরখানেক আগে তৈরি হয়েছে সার্চ কমিটিও। দুই বিশ্ববিদ্যালয়ে জন্য উপাচার্য চেয়ে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হলেও নিয়োগ হয়নি। ফলে বিশবাঁও জলে দক্ষিণ দিনাজপুর এবং দার্জিলিং হিল বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজ। নতুন শিক্ষাবর্ষে ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গিয়েছে। সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হবে সিমেস্টার। কিন্তু চলতি শিক্ষাবর্ষেও কোনও বিশ্ববিদ্যালয়ে পঠনপাঠন শুরু করা কার্যত সম্ভব নয় বলেই জানিয়েছেন উচ্চশিক্ষা দপ্তরের আধিকারিকরা। দক্ষিণ দিনাজপুর এবং দার্জিলিং হিল এই দুই বিশ্ববিদ্যালয়ে সার্চ কমিটির চেয়ারম্যান অধ্যাপক সুবীরেশ ভট্টাচার্য। তিনি বলেন, উপাচার্য নিয়োগের ব্যাপারে দু-এক মাসের মধ্যে আলোচনায় বসব। যাতে দ্রুত উপাচার্য নিয়োগ হয় তার জন্য মুখ্যমন্ত্রীকে অনুরোধ করা হবে বলে জানিয়েছেন জিটিএর চেয়ারম্যান অনীত থাপা।

২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে বিধানসভায় শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় উত্তরবঙ্গে নতুন বিশ্ববিদ্যালয়গুলি তৈরির কথা ঘোষণা করেছিলেন। তার কয়েক মাসের মধ্যেই প্রত্যেকটি বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য পৃথকভাবে তৈরি হয় আইন। রাজ্য বিধানসভায় সেগুলি পাসও হয়। কোথায় বিশ্ববিদ্যালয় তৈরি হতে পারে তা খতিয়ে দেখতে দুই জেলাতেই একাধিকবার পরিদর্শন করে শিক্ষা দপ্তরের প্রতিনিধিদল। ভবন তৈরির কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত অস্থায়ীভাবে কোনও কলেজ বা প্রতিষ্ঠান থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে পঠনপাঠন যাতে শুরু করে দেওয়া যায় তার জন্য একাধিকবার কলকাতা থেকে পরিদর্শক দল আসে জেলাগুলিতে। দার্জিলিংয়ে ভানুভবন এবং দক্ষিণ দিনাজপুরে বালুরঘাট কলেজ থেকে প্রাথমিকভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ে কাজ শুরুর পরিকল্পনার কথা বলা হয়েছিল। তবে এখনও পর্যন্ত কোনও পরিকল্পনাই বাস্তবায়িত হয়নি।

- Advertisement -

২০১৮ সালের ৫ সেপ্টেম্বর দার্জিলিংয়ে ম্যাল থেকে দার্জিলিং হিল বিশ্ববিদ্যালয়ে শিলান্যাস করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তেনজিং নোরগে, ভানুভক্ত এবং কাঞ্চনজঙ্ঘা নামে পাহাড়েই বিশ্ববিদ্যালয়ের তিনটি ক্যাম্পাস তৈরির কথাও সেই সময় ঘোষণা করেছিলেন তিনি। এরপর বিধি মেনে উপাচার্য নিয়োগ করতে সার্চ কমিটি গঠন করা হয়। কিন্তু কমিটি গঠনের এক বছর পরেও কেন উপাচার্য নিয়োগ হল না তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। সুবীরেশবাবু বলেন, দক্ষিণ দিনাজপুর এবং দার্জিলিং হিল বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য আমাদের কাছে কিছু নাম আগেই জমা পড়েছিল। কয়েক মাস আগে আমরা আরও কিছু নাম চেয়ে বিজ্ঞপ্তি দিয়েছিলাম। নানা কারণে এখনও নিয়োগ হয়নি। দু-এক মাসের মধ্যে কমিটির বৈঠক ডাকব। সেখানে আলোচনা করেই উপাচার্য নিয়োগের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। জিটিএর শিক্ষা সংক্রান্ত বিষয়টি দেখভালের দায়িত্বে রয়েছেন দার্জিলিংয়ের প্রাক্তন বিধায়ক অমরসিং রাই। তিনি বলেন, ইতিমধ্যেই মুখ্যমন্ত্রীকে দার্জিলিং হিল বিশ্ববিদ্যালয়ে বিষয়টি জানিয়েছি। যাতে তাড়াতাড়ি উপাচার্য নিযুক্ত করা হয় সেই দাবিও জানানো হয়েছে। উপাচার্য নিয়োগ হলেই অস্থায়ী কোনও ভবনে পঠনপাঠন শুরু হবে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে ফের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করব।

উপাচার্য নিয়োগ করে দ্রুত বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে পঠনপাঠন চালুর দাবি তুলেছে বিভিন্ন ছাত্র সংগঠন। এসএফআইয়ে রাজ্য সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য শুভ্রালোক দাস বলেন, কুমির ছানা দেখানোর মতো রাজ্য সরকার নামেই বিশ্ববিদ্যালয় চালু করেছে। কোথাও কোনও পরিকাঠামো এখন পর্যন্ত তৈরি করা হয়নি। আমরা চাই দ্রুত বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে পঠনপাঠন শুরু হোক। তৃণমূল ছাত্র পরিষদের রাজ্য সভাপতি তৃণাঙ্কুর ভট্টাচার‌্য বলেন, রাজ্য সরকার অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে নতুন বিশ্ববিদ্যালয়গুলির বিষয়ে ভাবনাচিন্তা করছে। আমরা আশাবাদী পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে ওই সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে পঠনপাঠন শুরু হবে।