সাইকেল নিয়ে টাইগার হিলে , নজর কাড়লেন শিলিগুড়ির দুই যুবক

781

শিলিগুড়ি : অদম্য মানসিক শক্তি আর নেশার টানে সাইকেল নিয়ে টাইগার হিলে পৌঁছে গেলেন শিলিগুড়ির দুই যুবক। এঁদের একজন দেশবন্ধুপাড়ার অনির্বাণ সূত্রধর, অন্যজন মাটিগাড়ার একটি উপনগরীর বাসিন্দা অনুনয় গুপ্তা। দুজনেরই বয়স সবে ২২ বছর। সাইক্লিংটা তাঁদের কাছে নেশা। মাঝে মাঝেই কার্সিযাং, রংটং করতে করতে এবার সরাসরি টাইগার হিলের মাটিতে। অনির্বাণ বলছিলেন, পুজোর পরেই আমরা সান্দাকফু যাওযার পরিকল্পনা করছি। তারপর আরও দুর্গম কোনো গন্তব্য ভাবা যাবে। সাইকেল নিয়ে অনির্বাণদের এই টাইগার হিল জয় হয়তো কোনো রেকর্ড গড়বে না, কিন্তু শিলিগুড়ি থেকে পাহাড়ি চড়াই-উতরাই পেরিয়ে মাত্র কয়েক ঘণ্টায় এই যুবকদের টাইগার হিল জয়ের অ্যাডভেঞ্চার মানসিকতা অনেকেরই নজর কাড়বে, তা বলাই যায়।

গত ২৩ সেপ্টেম্বর শিলিগুড়ি থেকে টাইগার হিলের উদ্দেশে রওনা হন অনির্বাণ, অনুনয় এবং তাঁদের আরও দুই বন্ধু তেনজিং গ্যাটসো এবং রজত ভৌমিক। এই চারজনই শিলিগুড়ির সানরাইজ সাইক্লিং গ্রুপের সদস্য। ২৩ সেপ্টেম্বর ভোর পৌনে পাঁচটায় দার্জিলিং মোড় থেকে অভিযান শুরু করেন তাঁরা। হিলকার্ট রোড অর্থাত্ ৫৫ নম্বর জাতীয় সড়ক ধরেই রংটং, চুনাভাটি, তিনধারিয়া, পাগলোঝোরা, মহানদী পেরিয়ে ৪৯২১ ফুট (১৪৫৮ মিটার) উচ্চতায় কার্সিয়াং পৌঁছান। সেখানে দলের বাকি দুজন অসুস্থতা বোধ করায় তাঁরা আর এগোননি। সেখানে ১৫ মিনিট কাটিয়ে মূল লক্ষ্যে রওনা হন অনির্বাণ এবং অনুনয়। টুং, সোনাদা হয়ে ঘুমে পৌঁছেই ডানদিকে টাইগার হিলের রাস্তা। কার্সিয়াং থেকে ঘুম পর্যন্ত রাস্তায় চড়াই ততটা অনুভব না হলেও ঘুম থেকে টাইগার হিল পুরো চড়াই। এই পথে সাইকেল নিয়ে দুই বন্ধুর সামনে তখন স্বপ্ন জয়ে হাতছানি। দুপুর ১২.১৫ মিনিটে ৮৪৮২ ফুট উচ্চতায় (২৫৯০ মিটার) টাইগার হিলের চূড়ায় পৌঁছে যান অনির্বাণ এবং অনুনয়। অনির্বাণ বলছিলেন, এ যে স্বপ্ন জয়! আমাদের যে কী আনন্দ হচ্ছিল বলে বোঝাতে পারব না। বরাবরই পাহাড়ে সাইক্লিং আমাদের টানে। কিন্তু সাফল্যের সঙ্গে মাত্র সাড়ে ছয় ঘণ্টায় টাইগার হিলের একেবারে চড়ায় পৌঁছানো, এটা আমাদের কাছে স্বপ্নই ছিল। সফল যাত্রার পরে আধ ঘণ্টা সেখানে ফোটোশুট, তারপর ফের বাড়ির পথে রওনা। একই পথে হিলকার্ট রোড হয়ে সন্ধে সাতটায় শিলিগুড়িতে ফিরে আসেন এই দুই বন্ধু। শিলিগুড়ির বিশিষ্ট পরিবেশপ্রেমী অনিমেষ বসু বলেন, এখন তো অভিভাবকরা ছেলেমেয়েদের বাড়ির বাইরে ছাড়তে চান না। সেই জায়গায় দুটো ছেলে এভাবে নিজস্ব উদ্যোগে সাইকেল নিয়ে টাইগার হিলে পৌঁছেছে এটা সত্যিই সাধুবাদযোগ্য। ওদের এই প্রচেষ্টা আরও অন্য অভিযাত্রীদেরও আত্মবিশ্বাস বাড়াবে।

- Advertisement -