আড়াই কোটি টাকার ফি মকুব করল গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়

934

প্রকাশ মিশ্র, মালদা : উত্তরবঙ্গ তথা রাজ্যের যেকোনও প্রতিষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয় যা পারেনি, তা করে দেখাল গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়। বিশাল অঙ্কের আর্থিক ক্ষতি হবে জেনেও  ছাত্রছাত্রীদের স্বার্থে প্রায় আড়াই কোটি টাকার বেশি নানা ধরনের ফি মকুব করল বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। এর ফলে প্রায় পঁয়ত্রিশ হাজার ছাত্রছাত্রী উপকৃত হবেন। একইসঙ্গে আন্ডার গ্র‌্যাজুয়েট এবং পোস্ট গ্র‌্যাজুয়েটের চূড়ান্ত বর্ষের ছাত্রছাত্রীদের পরীক্ষার বদলে ৮০-২০ ফর্মুলায় মূল্যায়ন পদ্ধতিতে ফলাফল ঘোষণার জন্য বিজ্ঞপ্তি জারি করল গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়। ছাত্র সংগঠনগুলো বিশ্ববিদ্যালয়ের এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে। ফি মুকুবের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে টিএমসিপির  জেলা সভাপতি প্রচণ্ড বলেন, এর ফলে হাজার হাজার ছাত্রছাত্রী উপকৃত হবেন। আমরা এই দাবি আগে থেকেই জানিয়েছিলাম।

নানা সমস্যায় জর্জরিত গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের অবনমন যেমন রয়েছে, তেমনই ছাত্রছাত্রীদের স্বার্থে একের পর এক ভালো কাজ করার সাক্ষ্যও বহন করে চলেছে। এর আগে আন্দোলনের জেরে সমাবর্তনের ফি এক ধাক্কায় অনেকটাই কমিয়ে দিয়েছিল বিশ্ববিদ্যালয়। উপাচার্য চঞ্চল চৌধুরী জানিয়েছেন, এই সিদ্ধান্তের ফলে আন্ডার গ্র‌্যাজুয়েট এবং পোস্ট গ্র‌্যাজুয়েট পাঠক্রমের চূড়ান্ত বর্ষের পঁয়ত্রিশ হাজার পরীক্ষার্থী উপকৃত হবেন। এই মর্মে বিজ্ঞপ্তি জারি করে সব কলেজে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি পরীক্ষার বিকল্প পদ্ধতি হিসেবে আশি ও কুড়ি শতাংশর ফর্মুলায়  মূল্যায়ন হবে, সেই বিষয়ে বৃহস্পতিবার রাতে বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে। সমস্ত কলেজে তা জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

- Advertisement -

করোনা আবহের মধ্যে রাজ্য সরকারের পরামর্শ মেনে বৃহস্পতিবারই গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় এগজিকিউটিভ কাউন্সিল আন্ডার গ্র‌্যাজুয়েট এবং পোস্ট গ্র‌্যাজুয়েট পাঠক্রমের চূড়ান্ত বর্ষের পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষার বিকল্প হিসেবে মূল্যায়ন পদ্ধতি সিলমোহর দিয়েছিল। আশি এবং কুড়ি শতাংশর ফর্মুলায়  মূল্যায়ন হবে।  আশি শতাংশ নম্বর আসবে আগের পরীক্ষায় পাওয়া কোনও সবচেয়ে বেশি নম্বর থেকে এবং কুড়ি শতাংশ আসবে অভ্যন্তরীণ মূল্যায়ন থেকে।  এ ব্যাপারে লিখিত বিজ্ঞপ্তি বৃহস্পতিবার রাতে জারি করেছে গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়।

এ প্রসঙ্গে ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার বিপ্লব গিরি জানিয়েছেন, রাজ্যের অন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে কোথাও কোথাও কিছু ফি কমানো হয়েছে। কিন্তু একেবারেই কোথাও মুকুব করা হয়নি।  কিন্তু  কোভিড পরিস্থিতিতে গৌড়বঙ্গের ছাত্রছাত্রীদের কথা মাথায় রেখে  বিভিন্ন ধরনের ফি মুকুবের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।  প্রত্যেক ছাত্রছাত্রীকে গড়ে সাড়ে সাতশো টাকা করে ফি দিতে হয়। সেই হিসেবে প্রায় ২ কোটি ৬২ লক্ষ টাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে তহবিলে আসার কথা। আর্থিক ক্ষতি স্বীকার করে ওই ফি মুকুব করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে এগজিকিউটিভ কাউন্সিল।

বিশ্ববিদ্যালয়ে কন্ট্রোলার বিশ্বরূপ সরকার জানান, সব কলেজগুলিকেও অনুরোধ করা হয়েছে, তারা যে সব ফি নিয়ে থাকে,  সেগুলি কমানোর ব্যাপারে ভাবনাচিন্তা করতে।   কন্ট্রোলার আরও জানিয়েছেন, কোনও পরীক্ষার্থী যদি মূল্যায়ন পদ্ধতিতে ফলাফলে সন্তুষ্ট না হন তাহলে তার সশরীরে পরীক্ষা দেওয়ার জন্য বিকল্প পথ খোলা থাকছে। সেই ক্ষেত্রে দুটি শর্ত রয়েছে। প্রথমত হচ্ছে কোভিড পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসার পর তা বিবেচনা করা হবে এবং পরীক্ষা দেওয়ার আগে তাকে মূল্যায়ন পদ্ধতির প্রাপ্ত  মার্কশিট আবেদনপত্রের সঙ্গে জমা দিতে হবে। এরপর ফলাফল প্রকাশিত হলে তিনি বেশি বা কম যাই পান না কেন নতুন করে মার্কসিট ইশ্যু করা হবে। আগের  মার্কশিট  বাতিল হবে।