শ্বশুরবাড়ির লোকজনের হাতে মার খেয়ে অপমানে আত্মঘাতী যুবক!

400

বর্ধমান: শ্বশুরবাড়ির লোকজনের হাতে মার খেয়ে অপমানে আত্মঘাতী হলেন এক যুবক। মৃতের নাম অর্জুন দেবনাথ (৩৩)। তাঁর বাড়ি পূর্ব বর্ধমানের নাদনঘাট থানার ভাতশালা গ্রামে। মৃতের পরিবারের সদস্যদের দাবি, আত্মঘাতী হওয়ার আগে অর্জুন মারধর ও অপমানের বিচার চেয়ে মোবাইলে ভিডিও একটি রেকর্ড করেন। তাতে মৃত্যুর জন্য অর্জুন শ্বশুরবাড়ির লোকজন এবং স্ত্রীকেই দায়ী করে গিয়েছেন। মঙ্গলবার কালনা মহকুমা হাসপাতালের পুলিশ মর্গে দেহের ময়নাতদন্ত হয়। নাদনঘাট থানার পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, নাদনঘাটের ভাতশালা গ্রামের যুবক অর্জুন দেবনাথ পেশায় হোটেল কর্মী ছিলেন। বেশ কয়েক মাস যাবৎ স্ত্রীর সঙ্গে তাঁর মনোমালিন্য চলছিল। সেই কারণে তাঁর স্ত্রী পাশের গ্রামে বাপের বাড়িতে থাকছিলেন। অভিযোগ, দিনকয়েক আগে স্ত্রীর সঙ্গে অর্জুনের ফের অশান্তি হয়। তখন শ্বশুরবাড়ির লোকজন অর্জুনের বাড়িতে এসে তাঁকে মারধর করে। তারপর থেকেই তিনি মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন।অপমানিত অর্জুন মারধরের ঘটনার বিচার চেয়ে ও নিজের মৃত্যুর কারণ উল্লেখ করে মোবাইলে একটি ভিডিও রেকর্ড করেন। এরপর সোমবার বিকেলে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মঘাতী হন তিনি। মৃতের বাবা দ্বিজেন দেবনাথ বলেন, ‘শ্বশুরবাড়ির লোকজন অর্জুনকে মারধর করেছে। তার জেরেই আত্মঘাতী হয়েছে ছেলে।’ পুলিশ ঘটনার তদন্ত করছে।

- Advertisement -