করোনা বিতর্ক বাতিল ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচ

সাও পাওলো : ব্রাজিলের স্বাস্থ্যকর্তাদের ব্যর্থতায় বাতিল হয়ে গেল লিওনেল মেসি বনাম নেইমার লড়াই। আর্জেন্টিনার চার ফুটবলারের কোয়ারান্টিন সংক্রান্ত বিতর্কের জেরে ম্যাচ না খেলেই দেশে ফিরল কোপা চ্যাম্পিয়নরা। বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্বয়ং মেসি। দেশের স্বাস্থ্য বিভাগের কাজে হতাশ ব্রাজিলিয়ান ফুটবল ফেডারেশনও।

ঘটনার কেন্দ্রে প্রিমিয়ার লিগে খেলা চার আর্জেন্টাইন অ্যাস্টন ভিলার এমিলিয়ানো মার্টিনেজ ও এমিলিয়ানো বুয়েন্দিয়া এবং টটেনহ্যামের জিওভান্নি লো সোলাসো ও ক্রিশ্চিয়ান রোমেরো। ব্রাজিলের স্বাস্থ্য বিভাগের নিয়ম অনুযায়ী, গ্রেট ব্রিটেন সহ অন্যান্য লাল তালিকাভুক্ত দেশ থেকে আসা সমস্ত বিদেশিকে ১৪ দিনের কোয়ারান্টিন পর্ব সমাপ্ত করতে হবে। এই নিয়মের জেরে প্রিমিয়ার লিগে খেলা ৯ জন তারকা ফুটবলারকে ছাড়াই বিশ্বকাপের বাঁছাই পর্বের ম্যাচ খেলছে তারা। অভিযোগ উঠছে, ওই চার ফুটবলার কোয়ারান্টিন সংক্রান্ত জটিলতা এড়াতে ইচ্ছাকৃত ভুল তথ্য দিয়েছেন। তাই তাঁদের কোয়ারান্টিনে পাঠাতে হবে।

- Advertisement -

রবিবার রাতে এই তথ্য জানাজানি হওয়ার পর স্বাস্থ্যকর্তাদের একটি দল আর্জেন্টিনার চার ফুটবলারের খোঁজে নামে। কিন্তু তাঁদের খোঁজ শেষ হওয়ার পাঁচ মিনিট আগেই ম্যাচ শুরু হয়ে গিয়েছিল। নিও কুইমিকা এরিনায় এই ম্যাচে বুয়েন্দিয়া ছাড়া বাকি তিন ফুটবলার আর্জেন্টিনার প্রথম একাদশে ছিলেন। স্বাস্থ্যকর্তারা স্টেডিয়ামে গিয়ে রেফারি সহ অন্য ম্যাচ অফিশিয়ালদের বিষয়টি জানিয়ে ওই ফুটবলারদের মাঠ থেকে বের করে দিতে অনুরোধ করেন। আলোচনা চলার মধ্যেই দেখা যায় সশস্ত্র নিরাপত্তারক্ষীদের নিয়ে মাঠে ঢুকছেন স্বাস্থ্যকর্তারা। এমনকি আর্জেন্টিনার ফুটবলার ও সাপোর্ট স্টাফদের সঙ্গে তাঁদের হাতাহাতিও হয়েছে।

পুরো ঘটনায় বেজায় ক্ষুব্ধ মেসি। তিনি বলেন, আমরা তিনদিন ব্রাজিলে রয়েছি। ওরা (স্বাস্থ্য বিভাগ) কি ম্যাচ শুরুর জন্য অপেক্ষা করছিল? কেন আগে বা টিম হোটেলে থাকাকালীন বিষয়টি জানানো হল না? ওরা আমাদের সঙ্গে কথা বললেই এই সমস্যার সমাধান হয়ে যেত। কিন্তু এখন গোটা বিশ্ব এই অব্যবস্থার সাক্ষী হল।