ওয়াশিংটনে ১৫ দিনের জরুরি অবস্থা ঘোষণা

131

ওয়াশিংটন: আমেরিকায় ক্ষমতার হস্তান্তরকে কেন্দ্র করে উত্তেজনার জেরে ওয়াশিংটনে আগামী ১৫ দিনের জন্য জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়েছে। বুধবার বিদায়ী মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের উস্কানিমূলক মন্তব্যের পরই ট্রাম্প সমর্থকরা মার্কিন কংগ্রেস ভবনে ঢুকে পড়ে। গতকাল আমেরিকার সংসদে জো বাইডেনকে আনুষ্ঠানিকভাবে রাষ্ট্রপতি পদে নির্বাচনের সময় ব্যারিকেড ভেঙে ভবনের ভিতরে ঢুকে পড়েন ট্রাম্প সমর্থকরা। এরপর সেখানে রীতিমতো তাণ্ডব চালান তাঁরা। ঘটনায় চারজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। হিংসার ঘটনায় ৫২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

ট্রাম্প বলেন, ‘আমরা পিছু হটব না।’ মার্কিন সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, এরপরই রাস্তায় নেমে পড়েন ট্রাম্প সমর্থকরা। নির্বাচনের সময় ক্যাপিটল ভবনের বাইরে জমা হন ট্রাম্প সমর্থকরা। ভোটে কারচুপি হয়েছে বলে অভিযোগ জানিয়ে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন তাঁরা। কিছুক্ষণ পর পুলিশের ব্যারিকেড ভেঙে ক্যাপিটেল বিল্ডিংয়ের ভিতরে ঢুকে পড়েন বিক্ষোভকারীরা। তাঁদের সামাল দিতে রীতিমতো বেগ পেতে হয় নিরাপত্তারক্ষীদের। বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে কাঁদানে গ্যাস ও পেপার স্প্রে ব্যবহার করেন পুলিশকর্মীরা। সংঘর্ষ চলাকালীন মার্কিন সংসদের নিম্নকক্ষ হাউজ অফ রিপ্রেজেন্টিটিভের সদস্যদের সেখান থেকে বের করে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যাওয়া হয়। মুলতুবি হয় অধিবেশন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ইমপিচমেন্টের দাবি তুলেছেন সেনেটাররা। ক্যাপিটল ভবনের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা অফিসার পল আর্ভিং বলেন, ভবনের নিরাপত্তা বলয় ভেঙে একদল বিক্ষোভকারী ঢুকে পড়ে। এরপরই তাণ্ডব শুরু করে তাঁরা।

- Advertisement -

ওয়াশিংটন ডিসির মেয়র মুরিয়েল বাউসার বৃহস্পতিবার টুইটারে ১৫ দিনের জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেন। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত এই জরুরি অবস্থা জারি থাকবে বলে জানান তিনি। ওয়াশিংটনের হিংসার পর ডোনাল্ড ট্রাম্পের সোশ্যাল অ্যাকাউন্টগুলি সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ফেসবুকের ভাইস প্রেসিডেন্ট গুই রোজেন বলেন, এটা জরুরি অবস্থা। তাই আপত্‍কালীন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

গোটা ঘটনার জন্য ডোনাল্ড ট্রাম্পের দিকেই সরাসরি অভিযোগের আঙুল তুলেছেন প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। ঘটনার নিন্দা করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি থেকে বরিস জনসন।