কৃষি আইনের পক্ষে বাইডেন প্রশাসন, সতর্ক পদক্ষেপে ব্রিটেন

240

ওয়াশিংটন: দিল্লির সিংঘু সীমান্তে কৃষি আন্দোলন নিয়ে কোনও সুরাহা মেলেনি। উলটে তীব্র থেকে তীব্রতর হচ্ছে আন্দোলন। সরকার পক্ষ বারংবার আইনের সুবিধা বোঝানোর চেষ্টা করলেও কৃষকরা নিজেদের দাবিতে অনড়। আর এমন সময়ে মোদি সরকারের জন্য কিছুটা অক্সিজেন বয়ে আনল আমেরিকার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। মন্ত্রক সূত্রে খবর, আমেরিকা বিশ্বাস করে ভারত সরকার কৃষিক্ষেত্রে যে আইন এনেছে তা কৃষকদের পক্ষে লাভজনক। পাশাপাশি বিদেশি বিনিয়োগের রাস্তাও তৈরি হবে ভারতে।

এই বক্তব্যের মধ্যে দিয়ে জো বাইডেন প্রশাসন সরাসরি স্পষ্ট করে দিতে চেয়েছে যে তারা মনে করছে ভারত সরকার কৃষিক্ষেত্রে যে সংস্কার এনেছে, তা কৃষকদের স্বার্থেই। যদিও মার্কিন কংগ্রেসে অনেকে এর উলটো মত পোষণ করেন। এই তালিকায় অন্যতম নাম কমলা হ্যারিসের ভাইঝি মিনা হ্যারিস। তিনি জানিয়েছেন, যেভাবে ভারতের কৃষকদের আওয়াজ বন্ধ করতে মোদি সরকার শক্তির প্রয়োগ ঘটিয়েছে, ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করেছে তা দুর্ভাগ্যজনক। ব্রিটেন অবশ্য সরাসরি মন্তব্য করতে নারাজ। পার্লামেন্টে এই প্রসঙ্গে একটি বিতর্ক সভার আয়োজন করতে চলেছে বরিস জনসন সরকার। সিংহভাগ মতামতের ওপর ভিক্তি করেই নিজেদের মন্তব্য জানাবে ব্রিটেন।

- Advertisement -

উল্লেখ্য, পপ তারকা রিহানা থেকে শুরু করে পরিবেশকর্মী গ্রেটা থুনবর্গ, মিয়া খলিফাদের বিরুদ্ধে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভারতের ক্রীড়াজগৎ থেকে শুরু করে সিনেমা জগৎ গর্জে উঠেছে ভারতের অখণ্ডতা প্রমাণে।