আগাম সতর্কতা, প্রতি ওয়ার্ডে টিকাকরণ কেন্দ্র তৈরির পরিকল্পনা আসানসোলে

106

আসানসোল: অক্টোবরে করোনার তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়ার সতর্ক বার্তা দেওয়া হয়েছে। সেক্ষেত্রে টিকাকরণে বিশেষ নজর দিতে বলা হয়েছে। তাই করোনার তৃতীয় ঢেউকে সামাল দিতে আগাম সতর্কতা নিতে চলেছে আসানসোল পুরনিগম কর্তৃপক্ষ। কলকাতা পুরসভার মতো আসানসোল পুরনিগমের ১০৬টি ওয়ার্ডে একটি করে অর্থাৎ ১০৬টি টিকারকরণ কেন্দ্র তৈরির মাইক্রো প্ল্যান গৃহীত হয়েছে। বুধবার বিকালে আসানসোল পুরভবনের এক সাংবাদিক সম্মেলনে একথা জানান পুর প্রশাসক অমরনাথ চট্টোপাধ্যায় ও পুর কমিশনার নিতিন সিঙ্গানিয়া।

পুর কমিশনার বলেন, ‘ইতিমধ্যেই আসানসোল পুরনিগম এলাকায় প্রায় ৩ লক্ষ মানুষ টিকা পেয়েছেন। তার মধ্যে আড়াই লক্ষ মানুষের দুটি ডোজ নেওয়া হয়েছে। বর্তমানে পুরনিগমের তরফে ২০টি সেন্টার (১৩টি স্থায়ী ও ৭টি মোবাইল সেন্টার) থেকে প্রতিদিন ৬ হাজার টিকা দেওয়া হচ্ছে। আগামীকাল বৃহস্পতিবার থেকে সেই সেন্টারের সংখ্যা বাড়িয়ে ৩৩টি করা হবে। ৩৩টি সেন্টার থেকে প্রতিদিন ১০ হাজার করে টিকা দেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে। তিনি আরও বলেন, ‘আসানসোল পুরনিগমের ১০৬টি ওয়ার্ডে একটি করে টিকাকরণ কেন্দ্র তৈরির মাইক্রো প্ল্যান নেওয়া হয়েছে। এই ১০৬টি সেন্টার থেকে প্রতিদিন ২০ হাজার টিকা দেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে। সব ঠিক থাকলে ও চাহিদা মতো ভ্য়াকসিন পাওয়া গেলে আগামী একমাস আসানসোল পুরনিগম এলাকায় পূর্ণমাত্রায় টিকাকরণ চলবে। আগামী সোমবার থেকে ১০৬টি ওয়ার্ডের প্রতিটি সেন্টার চালু করে দেওয়া হবে। পুর কমিশনার আরও বলেন, ‘আসানসোল পুরনিগম এলাকায় দুয়ারে সরকারের ২০০টি শিবির চলছে। প্রতিটা শিবির খুব ভালোভাবে চলছে।’ সাংবাদিক সম্মেলনে পুর প্রশাসক অমরনাথ চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘করোনা ও দুয়ারে সরকারের জন্য রাজ্য সরকারের যা নির্দেশ আছে, সেই মতো কাজ করা হচ্ছে।’

- Advertisement -