গুরুতর অসুস্থদের ক্ষেত্রে ভ্যাকসিন ১০০ শতাংশ কার্যকর, দাবি মডার্নার

797
প্রতীকী ছবি।

ওয়াশিংটন: গুরুতর অসুস্থদের ক্ষেত্রে মার্কিন ওষুধ প্রস্তুতকারক সংস্থা মডার্নার তৈরি কোভিড ১৯ ভ্যাকসিন এমআরএনএ-১২৭৩ ১০০ শতাংশ কার্যকর বলে দাবি করা হয়েছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপে ব্যবহারের জন্য কোভিড ১৯ ভ্যাকসিনের জরুরি অনুমোদন চেয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করা হবে বলে সোমবার সংস্থার তরফে জানানো হয়েছে।

মডার্না এক বিবৃতিতে বলেছে, কোভিড ১৯-এর বিরুদ্ধে ভ্যাকসিনের গড় কার্যকারিতা ৯৪.১ শতাংশ হলেও মারাত্মক অসুস্থ কোভিড রোগের বিরুদ্ধে ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা ১০০ শতাংশ বলে প্রমাণিত হয়েছে। মডার্নার সিইও স্টিফেন বানসেল বলেছেন, আমরা বিশ্বাস করি, আমাদের ভ্যাকসিন মহামারি মোকাবিলায় নতুন পথের সন্ধান দেবে। করোনা ভাইরাস সংক্রমণের পর বহু রোগীর শারীরিক অবস্থার গুরুতর অবনতি, হাসপাতালে ভর্তি হওয়া এমনকি করোনার জেরে যে মৃত্যু মিছিল শুরু হয়েছে, তা আটকানো সম্ভব হবে। মডার্নার চিফ মেডিকেল অফিসার ট্যাল জাকস বলেন, আমাদের তৈরি টিকা যে খুব কার্যকর, সেটা প্রমাণ করার মতো তথ্য আমাদের হাতে এসে গিয়েছে। এবার করোনা মহামারির পাশা উলটে দিতে পারব বলেই মনে হচ্ছে।

- Advertisement -

সূত্রের খবর, মার্কিন খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসন (এফডিএ) মডার্নার করোনা টিকাকে নিরাপদ এবং কার্যকর বলে ঘোষণা করলে টিকার দুটি ডোজের প্রথমটি ডিসেম্বরের মাঝামাঝি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে গণটিকাকরণ শুরু হয়ে যাবে। আমেরিকান ফার্মাসিউটিকাল কোম্পানি ফাইজার এবং জার্মানির বায়োএনটেকও তাদের তৈরি করোনা টিকার অনুরূপ অনুমোদন পেতে গত সপ্তাহে আবেদন করেছে এফডিএর কাছে। ফাইজারেরর টিকা ১০ ডিসেম্বরের পরেই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ব্যবহারের ছাড়পত্র পেয়ে যেতে পারে বলে অনুমান করা হচ্ছে। এরপর ১৭ ডিসেম্বর মডার্নার টিকা বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে বৈঠকে বসবেন এফডিএর কর্তৃপক্ষ। মার্কিন বিজ্ঞানী তথা করোনা প্রোগ্রামের প্রধান অ্যান্টনি ফৌসি বলেছেন, এফডিএ অনুমোদন দিলে টিকাকরণে আর ভয় পাওয়ার কিছু থাকবে না।

আমেরিকা জাতীয় স্বাস্থ্য সংস্থার সঙ্গে যৌথভাবে মডার্না যে করোনা টিকা তৈরি করেছে, তার এখন অন্তিম পর্যায়ের কাজ চলছে। আমেরিকার বিভিন্ন প্রদেশের নানা জাতিগোষ্ঠীর বিভিন্ন বয়সের ৩০ হাজার স্বেচ্ছাসেবীর ওপর ওই টিকা পরীক্ষা করার পর তার ফলাফল বিশ্লেষণ চলছে বলে জানা গিয়েছে। এই মাসের গোড়ার দিকে ৯৫ জন করোনা রোগীর ওপর টিকার ফলাফল বিশ্লেষণ করে অন্তর্বর্তী ফলাফলের ভিত্তিতে ৯৪.৫ শতাংশ কার্যকর বলে জানানো হয়েছিল। টিকার চূড়ান্ত বিশ্লেষণে ১৯৬ জনের ওপর পরীক্ষা চালানো হয়। ১৯৬ জনের মধ্যে ১৮৫ জনকে প্ল্যাসিবো টিকা (ওষুধ মূল্যহীন টিকা বা স্যালাইন ওয়াটার) দেওয়া হয়। অবশিষ্ট ১১ জনকে দেওয়া হয় আসল টিকা। প্ল্যাসিবো গ্রুপে রাখা হয়েছিল ৩০ জন গুরুতর অসুস্থ রোগীকে, যাঁদের একজনের পরে মৃত্যু হয়। টিকার কার্যকারিতা বয়স, জাতি, গোষ্ঠী এবং লিঙ্গ নির্বিশেষে প্রমাণিত হয়েছে।

সূত্রের খবর, মডার্নার টিকা ২ থেকে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় ৩০ দিন কার্যকর থাকে। আর হিমাঙ্কের নীচে ২০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে রাখতে পারলে মডার্নার টিকা কার্যকর থাকবে পাক্কা ৬ মাস। ভারতের মতো দেশগুলি এতে লাভবান হবে। তবে মডার্নার টিকার দুটি ডোজের দাম আনুমানিক ৩৮ থেকে ৪৫ পাউন্ড হতে পারে। ফাইজারের টিকার দুটি ডোজের দাম পড়বে মোটামুটি ৩০ পাউন্ড। সেখানে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার এক একটি ডোজের দাম হতে পারে মাত্র ৩ পাউন্ডের মধ্যে। জনসন অ্যান্ড জনসন যে টিকা বের করছে, তার দাম ৮ পাউন্ডের বেশি হবে না।