রায়গঞ্জ ব্লকের বিস্তীর্ণ এলাকা জলের তলায়, আতঙ্ক

383

রায়গঞ্জ: দিন কয়েকের বৃষ্টিতে ভাসল রায়গঞ্জ ব্লকের একাধিক গ্রাম পঞ্চায়েতের ২০টি গ্ৰাম। ফলে জল বন্দি হয়ে পড়েছে গ্রামের বাসিন্দারা। উত্তরবঙ্গে ভারী বৃষ্টির জন্যই নাগর, মহানন্দা, কুলিক নদীর জল বেড়ে যাচ্ছে। বসতি এলাকায় জল ঢোকায় রবিবার বিকেল পর্যন্ত কোনও খবর না থাকলেও প্রশাসনের তরফে সতর্ক করা হয়েছে।

রায়গঞ্জ ব্লকের বিডিও রাজু লামা বলেন, “পরিস্থিতির ওপর নজর রাখা হচ্ছে। সকলকে সতর্ক করা হয়েছে। পর্যাপ্ত ত্রাণ মজুদ করার ব্যবস্থা করা হচ্ছে।”

- Advertisement -

গত ৭২ ঘণ্টায় উত্তর দিনাজপুর জেলায় মোট বৃষ্টিপাত হয়েছে ২১৭ মিলিমিটার। এরমধ্যে ইসলামপুর মহাকুমায় সবচেয়ে বেশি বৃষ্টিপাত হয়েছে। যার পরিমাণ ১৪১.৪০ মিলিমিটার। রায়গঞ্জ ব্লকের ভাতুন গ্রাম পঞ্চায়েত, জগদীশপুর গ্রাম পঞ্চায়েত, বাহিন গ্রাম পঞ্চায়েত, গৌরী গ্রাম পঞ্চায়েতের ২০টি গ্রাম জলমগ্ন। বেশকিছু গ্রামে বাড়ির মধ্যেও জল ঢুকে পড়েছে। উত্তরবঙ্গে ব্যাপক বৃষ্টিপাতের জন্য উত্তর দিনাজপুর জেলার গামারি, কুলিক, নাগর, মহানন্দা, ডাউক, সুঁই সহ নদীর জল দ্রুত বাড়ছে। এদিন বিকেল পর্যন্ত বিপদসীমা স্পর্শ না করলেও কড়া নজর রাখছে সেচ দপ্তর।

সেচ দপ্তরের আধিকারিক উত্তম হাজরা বলেন,” সমস্ত নদীতে হলুদ সর্তকতা জারি করা হলেও লাল সর্তকতার মত অবস্থা এখনও আসেনি। তবে আরও বৃষ্টি হলে পরিস্থিতি অন্য দিকে মোড় নেবে। বাঁধের যে সমস্ত জায়গা দুর্বল হয়ে পড়েছে সেখানে বালির বস্তা মজুদ করা হয়েছে।”

গৌরী গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান সীমা মন্ডল বলেন, গৌরী গ্রাম পঞ্চায়েতের একাধিক গ্রাম জলমগ্ন হয়ে পড়েছে। সমস্ত বিষয়টি জেলাশাসককে জানানো হয়েছে। বাহিন গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান আব্দুল কাদের বলেন, স”লহুজ গ্রাম,কুমারজোল,টেগড়া, কুমরোল, বাস্তিপুর গ্রামের ফসল জলের তলায়। নাগর ও মহানন্দা নদীর জল ঢুকে পড়ায় সংশ্লিষ্ট গ্রাম পঞ্চায়েতের একাংশ গ্রাম জলের তলায়। একদিকে টানা বৃষ্টি অন্যদিকে নদীর জল বেড়ে যাওয়ায় ধান ,পাট রকমারি ফসলের দফারফা।

রায়গঞ্জ ব্লকের বিভিন্ন গ্রাম পঞ্চায়েতের বহু এলাকার জমি কার্যত জলের তলায়। রায়গঞ্জ এবং ইটাহার দিয়ে বয়ে যাওয়া নাগর, কুলিক ও মহানন্দা নদীর জল বাড়ার জেরে প্লাবিত হয়েছে একাধিক গ্রাম। ধানের পাশাপাশি বিভিন্ন মরশুমি সবজিও জলে ভাসছে। রায়গঞ্জ ব্লকের এই সংশ্লিষ্ট গ্রাম পঞ্চায়েতের কৃষি জমিতে সবজি উৎপাদনের জন্য বিখ্যাত। একের পর এক গ্রামে জল হুহু করে ঢুকছে। রীতিমতো আতঙ্কিত রায়গঞ্জ মহকুমার বাসিন্দারা।

পঞ্চায়েত সমিতির সহ-সভাপতি মানস ঘোষ বলেন,”বাহিন ও গৌরী গ্রাম পঞ্চায়েতের ২০ টি গ্রাম জলমগ্ন। এলাকা পরিদর্শন করা হচ্ছে। পাশাপাশি ভাতুন ও জগদীশপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের ১৬ টি গ্রাম জলমগ্ন হয়েছে এলাকা পরিদর্শন করা হচ্ছে। সমস্ত বিষয়টি জেলা প্রশাসনকে জানানো হয়েছে।”