করোনা সংক্রমণ রুখতে জাপানে বসছে ভেন্ডিং মেশিন

121

টোকিও: দেশে করোনা ভাইরাসের সেকেন্ড ওয়েভ শুরু হয়েছে। যার ফলে বিভিন্ন দেশের প্রশাসন লকডাউন, কারফিউ সহ একাধিক পদক্ষেপ জারি করতে শুরু করেছে। আন্তর্জাতিক বিমানেও বিধিনিষেধ জারি হয়েছে।ভারত, ইংল্যান্ড, আমেরিকা সহ একাধিক দেশের পাশাপাশি করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে জাপানে। এদেশে টেস্টিংয়ের সংখ্যা কম হওয়ায় সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা বাড়ছে। যার মধ্যে টোকিওতে আক্রান্তের সংখ্যা অনেকটাই বেশি।

জাপানের সরকারি হাসপাতালে প্রতিদিন মাত্র ৪০ হাজার পিসিআর টেস্ট হচ্ছে। যা মোট জনসংখ্যার এক চতুর্থাংশও নয়। ফলে কে আক্রান্ত হচ্ছে তা বোঝা যাচ্ছে না। ফলে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে নয়া পদক্ষেপ করেছে এক ব্যবসায়িক সংগঠন। ভেন্ডিং মেশিনের মাধ্যমে পিসিয়ার টেস্টিং কিটের ব্যবস্থা করেছে সেই সংগঠন। এই ভেন্ডিং মেশিন যে কেউ ব্যবহার করতে পারে এবং যে কেউ সেখান থেকে টেস্টিং কিট বের করে নমুনা সংগ্রহ করতে পারে।

- Advertisement -

সূত্রের খবর, আপাতত টোকিওর বেশ কয়েকটি জায়গায় এই মেশিন বসানো হয়েছে। এর ফলে সরকারি বা বেসরকারি কোনও হাসপাতালে গিয়ে লাইনে দাঁড়িয়ে টেস্ট করার ঝক্কি নিতে হবে না। দ্রুত হারে টেস্টিংয়ের ফলে যে কেউ নিজেদের আগে থেকে সচেতন করতে পারবে। এতে সংক্রমণ ছড়াবে না।

এ বিষয়ে লেকটাউন টেকেনোকো ইএনটি ক্লিনিকের ডিরেক্টর হিদেকি তাকেমুরা জানান, ভেন্ডিং মেশিন লাগানোর সঙ্গে সঙ্গেই মানুষের ভালো প্রতিক্রিয়া পাওয়া গিয়েছে। কারণ এতে ভিড় এড়ানো যাচ্ছে। যার ফলে একজনের থেকে আরেকজনের শরীরে সংক্রমণ ছড়ানোর সম্ভাবনা কম থাকছে। আপাতত ৭টি মেশিল গ্রেটার টোকিও এলাকায় বসানো হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। প্রত্যেকটি ভেন্ডিং মেশিনে ৬০টি করে টেস্টিং কিট রয়েছে। যা ৪,৫০০ ইয়েনে বিক্রি হচ্ছে। ব্যবসায়ী সংগঠনের মতে, জাপানে টেস্টিংয়ের জন্য ৪.১ মিলিয়ন ভেন্ডিং মেশিন তৈরি হচ্ছে।