ওদলাবাড়ি,৬ মার্চঃ  ফের একবার বাগ্রাকোটের সেনা ফায়ারিং রেঞ্জে প্রশিক্ষনরত সেনাবাহিনীর ভুল নিশানার শিকার হল এক কিশোর। স্থানীয়দের অভিযোগ, বুধবার দুপুরে  ফায়ারিং রেঞ্জে প্রশিক্ষনরত সেনাবাহিনীর একটি মর্টার শেল লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়ে ফায়ারিং রেঞ্জ সংলগ্ন ফাঁকা মাঠে গিয়ে পড়ে। সেই সময় মাঠে রিকেশ ওরাও (১৭) নামে এক কিশোর গরু চড়াচ্ছিল। মর্টার শেলের বিস্ফোরনে গুরুতর জখম হয় সাওগাবস্তির ওই কিশোর। দ্রুত তাকে মাল সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। প্রাথমিক চিকিৎসার পর  উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে নিয়ে যাবার পথে মৃত্যু হয় রিকেশের।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ২ এপ্রিল উত্তর পূর্ব ভারতে সেনাবাহিনীর গোলাগুলি প্রশিক্ষনের জন্য সবচেয়ে বড় এই ফায়ারিং রেঞ্জে মর্টার শেল বিস্ফোরনে দুই নাবালকের মৃত্যুর ঘটনায় সংবাদমাধ্যমে  হৈ চৈ শুরু হতেই বেশ কিছুদিন সতর্কতা অবলম্বন করেছিল সেনা কর্তৃপক্ষ। দুবছর আগের ওই ঘটনার পর সেনাবাহিনীর ২৭ মাউন্টেন ডিভিশনের সেনা আধিকারিককে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে একটি চিঠি পাঠিয়ে ফায়ারিং রেঞ্জের পার্শ্ববর্তী এলাকার সাধারন নাগরিকদের সুরক্ষার প্রতি নজর দিতে বলা হয়েছিল। সেনা কর্তৃপক্ষ যে রাজ্য সরকারের পরামর্শকে কোনও গুরুত্বই দেয় নি এদিনের ঘটনা তা আবার চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিল বলে স্থানীয় মানুষের অভিযোগ। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সাওগা বস্তি ও সোনালী চা বাগানের একাধিক বাসিন্দা জানিয়েছেন, ‘সেনাবাহিনীর ফায়ারিং প্রশিক্ষন চলাকালীন প্রতিদিন আমরা আতঙ্কে থাকি। কখনও শ্রমিকের রান্নাঘরের টিন ফুটো করে মর্টার শেল সোজা ঘরে এসে পড়ছে, আবার কখনও লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়ে শ্রমিকবস্তিতে। এর বাইরে গোলাগুলি বিস্ফোরনের বিকট আওয়াজে এলাকার অনেক বাসিন্দার কানের সমস্যা দেখা দিয়েছে। শত অসুবিধা স্বত্বেও সেনার ভয়ে কেউ কিছু বলার সাহস পান না।’ এই পরিস্থিতিতে রাজ্য সরকারের কাছে স্বাভাবিক জীবন ফিরিয়ে দেবার আবেদন জানিয়েছেন স্থানীয়রা। এ প্রসঙ্গে মালের মহকুমা শাসক সিয়াদ এন বলেন, ‘সেনা বাহিনীর ওই ফায়ারিং রেঞ্জের জমির লিজচুক্তির মেয়াদ ২০১৯ সাল পর্যন্ত রয়েছে। লিজ নবীকরনের জন্য সেনাবাহিনীর তরফে ইতিমধ্যে আবেদন জানানো হলেও লিজ নবীকরন করা হবে কিনা তা রাজ্য সরকার গুরুত্ব দিয়ে ভাবছে।’

মাল থানার পুলিশ ওই কিশোরের মৃতদেহ নিজেদের হেফাজতে নিয়েছে। আগামীকাল ময়নাতদন্তের পর মৃতদেহ পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হবে। বিষয়টি নিয়ে সেনাবাহিনীর কোনও মন্তব্য পাওয়া যায়নি।