রাস্তা নির্মাণে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগ, বিডিওর দ্বারস্থ গ্রামবাসী

205

চাঁচল: ঢালাই রাস্তা নির্মাণে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগ, বিডিও’র দ্বারস্থ হলেন গ্রামবাসীরা। রাস্তা নির্মানে এমনই দুর্নীতি এবং স্বজনপোষনের অভিযোগ তুলে বিক্ষোভ প্রদর্শন করল চাঁচল ১ ব্লকের মকদমপুর পঞ্চায়েতের গৌড়িয়াবাসী। সূত্রের খবর, ওই  ১৩০ নম্বর সংসদটি কংগ্রেসের দখলে। কোনও কাজ হলে তৃণমূল কংগ্রেসের লোকজন ছোঁয়া পায় না। তার ফাঁকেই দুর্নীতি ও স্বজনপোষন বলে তৃণমূলের অভিযোগ। বেহাল রাস্তা পুর্ননির্মাণের দাবি ও সদস্যের স্বজনপোষনের অভিযোগ তুলে চাঁচল ১ বিডিও-র কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন।

পঞ্চায়েত সূত্রে আরও জানা গিয়েছে, ওই এলাকার গৌড়িয়া ১৩০ নম্বর সংসদে প্রায় দেড়মাস আগে নির্মাণ হয় ঢালাই রাস্তা। তা বেশিরভাগই নিম্নমানের সামগ্রী বলে অভিযোগ করছে বাসিন্দারা। মেম্বারের স্বামী জুলফিকার আলি ঠিকাদারের রূপ নিয়ে কাজ করিয়েছে।

- Advertisement -

তৃণমূল কংগ্রেস নেতা অশোক সাহা অভিযোগ করে বলেন, ‘রাস্তা নির্মাণে নিম্নমানের সামগ্রী সিংহভাগই ব‍্যবহার করেছে। যার ফলে মাস খানেকের মধ‍্যেই রাস্তায় ফাটল ও ধার ধসে পড়ছে। পাশাপাশি রাস্তা নির্মানের এই বরাতে স্বজনপোষন করা হয়েছে। রাস্তা নির্মানের বরাত মেম্বারের স্বামী জুলফিকারকে দেওয়া হয়েছে। যার কারনেই রাস্তার এই ভগ্নদশা।‘

কংগ্রেসের পঞ্চায়েত সদস্যের স্বামী জুলফিকার আলি অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘কাজ ভালো হয়েছে, এলাকার মানুষ চলাচল করেছে রাস্তাও ভালো আছে। স্বজনপোষণ ও দুর্নীতির বিষয়টি ভিত্তিহীন। রাজনৈতিক রঙ ছাড়া কিছুই নেই এই বিক্ষোভে।‘ পাশাপাশি স্বজনপোষন ও দুর্নীতির অভিযোগ অস্বীকার করেছেন ও পঞ্চায়েতের প্রধান সহদেব চন্দ্র মন্ডল। তিনি বলেন, ‘এটা তৃণমূলের চক্রান্ত। ওই কাজে নিয়ম মেনে টেন্ডার করে রাস্তা কংক্রিট করা হয়েছে।‘

চাঁচল ১ বিডিও সমীরণ ভট্টাচার্য বলেন, ‘অভিযোগ পেয়েছি। ঘটনার তদন্ত শুরু করা হবে। তবে, রাস্তা নির্মাণ দুর্নীতির অভিযোগ প্রমাণিত হলে কড়া পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।‘