কারখানার শব্দ ও দূষণে জেরবার গ্রামবাসীরা, রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ 

98

আসানসোল: বাতাসে ভাসছে কয়লা গুঁড়ো। ঢুকে পড়ছে ঘরের ভেতরে। অন্যদিকে, কারখানার যন্ত্রের বিকট আওয়াজে এলাকায় কান পাতা দায়। এইসব অভিযোগে বৃহস্পতিবার রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখালেন আসানসোলের কুলটি থানার কদুভিটা গ্রাম সহ আশেপাশের এলাকার বাসিন্দারা।

গ্রাম ও এলাকা ঘেঁষা কল্যানেশ্বরী শিল্পতালুক রয়েছে। সেখান থেকেই দূষণ ছড়াচ্ছে বলে এলাকার বাসিন্দাদের অভিযোগ। স্পঞ্জ আয়রণ, সিমেন্ট কারখানা রিফ্যাক্টরির মতো বিভিন্ন ছোট বড় কারখানা রয়েছে গ্রাম সংলগ্ন এলাকায়। সেইসব কারখানা থেকে কালো ধোঁয়া আর কয়লার গুঁড়োয় ঢেকে যাচ্ছে গ্রাম। এমনকি কান পাতা দায় হয়ে পড়েছে কারখানার সাইরেনে। প্রতিবাদের শিল্পতালুকের বিভিন্ন গাড়ি আটকে এদিন বিক্ষোভ দেখান গ্রামবাসীরা।

- Advertisement -

অঙ্গুরি মালিক নামে এক মহিলার অভিযোগ, ছেলেমেয়ে সহ বাড়ির অন্যদের শরীরে কালি পড়ে যাচ্ছে। রান্নাঘরে কালি পড়ছে। কয়লা গুড়ো উড়ে আসছে কয়লাবাহী ডাম্পার থেকে। মাঝে মাঝেই পেটের অসুখের মতো রোগ হচ্ছে। বিজয় ঠাকুর নামে আরও এক বাসিন্দা অভিযোগ করে বলেন, ‘আমরা দাবি জানাচ্ছি গোটা গ্রামটিকেই শিল্পতালুকে ঢুকিয়ে নেওয়া হোক। নয়তো পুর্নবাসন দিয়ে আমাদের অন্যত্র পাঠিয়ে দেওয়া হোক। রোজরোজ এই কষ্ট আর ভোগ করা যাচ্ছে না।’

এদিন দেন্দুয়া কল্যানেশ্বরী যাওয়ার মূল রাস্তায় কদুভিটা গ্রামের মোড়ে রাস্তা অবরোধ শুরু করেন গ্রামবাসীরা। কল্যানেশ্বরী লেফ্ট ব্যাঙ্ক, কল্যানেশ্বরী, কদুভিটা, দেবীপুর, সুকান্তপল্লী, পুরাণ্ডি সহ অন্য গ্রামের বাসিন্দা বিক্ষোভে শামিল হন। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, দিনের পাশাপাশি রাতেও দূষণ বাড়ছে।

অবরোধের খবর পেয়ে কুলটির চৌরঙ্গি ও কল্যানেশ্বরী ফাঁড়ির পুলিশ সেখানে যায়। পুলিশ কারখানা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে। স্থানীয় বাসিন্দাদের পুলিশ আশ্বাস দেয় সমস্যার সমাধান করার চেষ্টা করা হবে। তারপরেই অবরোধ তুলে নেন গ্রামবাসীরা। আপাততঃ দূষণ নিয়ন্ত্রনের জন্য জল ছেটানোর ব্যবস্থা করা হবে বলে জানা গিয়েছে৷ শুধু শব্দ ও বায়ু দূষণ নয়, কলকারখানার ভারী যান চলাচলে এলাকার রাস্তাও বেহাল হয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ তোলেন বিক্ষোভকারীরা। সেই সমস্যা সমাধানের জন্য গ্রামবাসীদের সঙ্গে প্রশাসনিক বৈঠকের আশ্বাস দিয়েছে পুলিশ।