অন্ডালের গ্রামে ধস, পুনর্বাসনের দাবিতে গ্রামবাসীদের বিক্ষোভ

88

 অন্ডাল ও দূর্গাপুরঃ পশ্চিম বর্ধমান জেলার অণ্ডাল থানার পড়াশকোল এলাকায় শুক্রবার ধসের ঘটনা ঘটে। এই ধসের কবলে প্রায় ১০০ টি পরিবার ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে বলে প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে। এদিনের ধসে এলাকার একটি মন্দির সহ  প্রায় ৪০ টি বাড়িতে এবং রাস্তাতেও ফাটল ধরেছে। এই ঘটনার পরে আতঙ্কিত গ্রামবাসীরা পরিবার নিয়ে বাড়ি ছেড়ে রাস্তায় আশ্রয় নেয়। গ্রামবাসীদের অভিযোগ, ইসিএলের  গাফিলতি ও উদাসীনতার কারণে তাদেরকে আজ বিপাকে পড়তে হয়েছে । খবর পেয়ে এলাকায় তড়িঘড়ি ছুটে আসেন আসানসোল দূর্গাপুরের পুলিশ কমিশনার অজয় ঠাকুর, দূর্গাপুরের মহকুমা শাসক অর্ঘ্য প্রসূন কাজী, অণ্ডালের বিডিও সুদীপ্ত বিশ্বাস সহ তৃণমূল কংগ্রেস ও সিপিএমের নেতা ও কর্মীরা। সিপিএমের নেতা ও কর্মীরা ক্ষতিগ্রস্থ গ্রামবাসীদের নিয়ে ইসিএলের জিএমের কোয়ার্টারের সামনে পুনর্বাসনের দাবিতে ধর্ণায় বসে পড়েন। জেলা প্রশাসন ধসে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার গুলির জন্য খাবার খাওয়ানোর পাশাপাশি স্থানান্তরিত করার ব্যবস্থা করেন।

 প্রশাসন ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, পড়াশকোল গ্রাম এলাকায় অনেক আগে কয়লাখনি ছিল। সেখানে ইসিএল কয়লা উত্তোলনের পরে ভূগর্ভে বালি ভরাট সঠিকভাবে করেনি বলে অভিযোগ। যার ফলে এলাকায় ধস ও ফাটল হয়েছে। একই অবস্থা পাশের হরিশপুর গ্রামেরও। সেখানে ধসের কবলে পড়ে প্রায় একবছর ধরে বহু পরিবার ঘরছাড়া রয়েছে। ঐ গ্রামের বাসিন্দারা বিধানসভা ভোট বয়কট করেছিলেন পুনর্বাসনের দাবিতে। এদিন ঐ গ্রামের বাসিন্দারাও পড়াশকোল গ্রামের বাসিন্দাদের সঙ্গে পুনর্বাসনের দাবিতে ধর্ণায় বসে পড়েন।

- Advertisement -

ইসিএলের কাজোরা এরিয়ার জিএম জয়েশ চন্দ্র  রায় বলেন, খনির বিশেষজ্ঞরা ঘটনাস্থলে গেছেন। ঘরছাড়া পরিবার গুলির কি ব্যবস্থা করা যাবে সেই  বিষয়ে জেলাশাসকের সঙ্গে আলোচনা করে সমাধান করা হবে। এই ধরনের ঘটনা আবার ঘটার সম্ভাবনা রয়েছে কিনা সেই বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।