অল ইংল্যান্ড ফাইনালের স্বপ্ন বারপোস্টে আটকে

প্রতীকী ছবি।

রোম : তিন বছর আগে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ কোয়ার্টার ফাইনালে বার্সেলোনার বিরুদ্ধে রূপকথা রচনা করেছিল রোমা। বৃহস্পতিবার রাতে ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেডের বিরুদ্ধেও তেমন কিছু করার চেষ্টা করলেন এডিন জেকোরা।

কিন্তু সেদিন আর এদিনে তফাতের নাম ডেভিড ডে গিয়া। ইউরোপা লিগের সেমিফাইনালের প্রথম পর্বে ৬-২ গোলে জিতে ফাইানালে এক পা দিয়ে দিয়েছিল ইউনাইটেড। যদিও ঘরের মাঠে ফিরতি পর্বে আক্রমণের ঝড় তুলল রোমা। ম্যাচের স্কোর অনুযায়ী, তিনবার পরাস্ত হয়েছেন ডে গিয়া। কিন্তু স্কোরকার্ডে যেটা বলা নেই, এর তিনগুণ গোল আটকে দিয়েছেন তিনি। মোট ১০টি গোল বাচিয়েছেন, যার মধ্যে ৯টি শট বক্সের ভেতর থেকে নিয়েছিলেন রোমার ফুটবলাররা। ফলে এডিনসন কাভানির জোড়া গোল এবং ডে গিয়ার বিশ্বস্ত হাতে ভর দিয়ে প্রথমবার কোনও প্রতিযোগিতার ফাইনালে উঠল ওলে গানার সোলসায়ারের ইউনাইটেড।

- Advertisement -

এদিন ম্যাচ শেষে স্প্যানিশ গোলরক্ষকের প্রশংসা সোলসায়ারের মুখে। বললেন, ডেভিড দুর্দান্ত খেলেছে। আমার কাছে ও ম্যাচের সেরা পারফরমার। ফুটবলারের গুরুত্বর প্রমাণ মাঠে পাওয়া যায়। ভালো খেললে দলে ঠাঁই পাওয়া যায়। ও দলে নিজের গুরুত্ব বুঝিয়েছে। পাশাপাশি কাভানির পারফরম্যান্স নিয়ে তাঁর বক্তব্য, এডিনসন সেমিফাইনালের মতো গুরুত্বপূর্ণ পর্যায়ে দুই পর্বে চার গোল করেছে। আমাদের ফাইনালে ওঠার পেছনে এটা একটা প্রধান কারণ। এজন্য আমরা ওকে ক্লাবে রাখতে আগ্রহী। তবে গোল খাওয়া এবং পাওয়া সুযোগ ঠিকভাবে কাজে না লাগানো নিয়ে কিছুটা ক্ষোভ রয়েছে ইউনাইটেড বসের।

তিন মরশুমে দ্বিতীয়বার ইউরোপে অল ইংল্যান্ড ফাইনালের সুযোগ তৈরি হয়েছিল। ২০১৮-১৯ মরশুমে লিভারপুল ও টটেনহ্যাম চ্যাম্পিয়ন্স লিগ এবং চেলসি ও আর্সেনাল ইউরোপার ফাইনাল খেলেছিল। এবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগে খেতাবের ম্যাচে মুখোমুখি ম্যাঞ্চেস্টার সিটি ও চেলসি। অন্যদিকে বৃহস্পতিবার রাতের ম্যাচের আগেই ইউরোপার ফাইনালে একপ্রকার পৌঁছে গিয়েছিল ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেড। এমন অবস্থায় ভিল্লারিয়ালের বিরুদ্ধে ঘরের মাঠে জিতলেই ফাইনালে চলে যেত আর্সেনাল। কিন্তু দুবার বারপোস্টে আটকে গেল গানার্সদের ফাইনালে যাওয়ার সুযোগ। দুটি শটই পিয়ের এমরিক অবামেযাংয়ের। প্রথম পর্ব ২-১ গোলে জেতায় ফাইনালে চলে গেল ভিল্লারিয়াল।