লিভারপুল-বধে ক্রুজকে কৃতিত্ব ভিনিসিয়াস

মাদ্রিদ : ভি ফর ভিনিসিয়াস, ভি ফর ভিক্টরি।

এই যোগসূত্রেই চ্যাম্পিয়ন্স লিগে শেষ চারের পথে অ্যাডভান্টেজ রিয়াল মাদ্রিদ। মঙ্গলবার রাতে কোয়ার্টার ফাইনালের প্রথম লেগে লিভারপুলকে ৩-১ গোলে হারাল জিনেদিন জিদানের দল। ম্যাচে জোড়া গোলের নায়ক ব্রাজিলিয়ান তারকা ভিনিসিয়াস জুনিয়ার।

- Advertisement -

চোটের কারণে সার্জিও র‌্যামোস ছিলেন না। ম্যাচের কয়েক ঘণ্টা আগে করোনা সংক্রমণে রাফায়েল ভারানের ছিটকে যাওয়া বড় ধাক্কা ছিল রিয়াল শিবিরে। প্রথম এগারো বাছতে হিমসিম খাওয়া জিদান রক্ষণ সামাল দিতে নামিয়ে দিয়েছিলেন অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার লুকাস ভাসকোয়েকে। সেই কঠিন পরিস্থিতিতে জ্বলে উঠলেন ভিনিসিয়াস। সাম্বা তারকার জুগো বনিতোর ঝলকে কুপোকাত জুর্গেন ক্লপের দল।

লিভারপুল ম্যাচের আগে রিয়াল জার্সিতে ১০৫ ম্যাচে ভিনিসিয়াসের গোলসংখ্যা ছিল মাত্র ১২! অতীতে করিম বেঞ্জিমার সঙ্গে মতবিরোধের জেরে শিরোনামে থেকেছেন ব্রাজিলিয়ান। তবে মঙ্গলবার যেন স্পটলাইট নিজের দিকে টেনে নিতেই মাঠে নেমেছিলেন ভিনিসিয়াস। ২৭ ও ৬৫ মিনিটে তাঁর জোড়া গোল বাঁধিয়ে রাখার মতোই সুন্দর। ম্যাচের পর সমালোচকদের জবাব দিতে পেরে খুশি রিয়ালের তরুণ উইঙ্গার। ভিনিসিয়াস বলেন, এই (রিয়াল মাদ্রিদ) জার্সির জন্য আমি সবকিছু দিতে প্রস্তুত। বাইরে থেকে অনেকে অনেককিছু বলতে পারেন। তাতে কিছু যায় আসে না। কঠিন পরিশ্রমই আমার সাফল্যের মূলমন্ত্র। আর সতীর্থদের ভরসা আমার সবচেয়ে বড় শক্তি। পাশাপাশি যাঁর পাস ধরে ব্রাজিলিয়ানের প্রথম গোল, সেই টনি ক্রুজকে ক্লাব লেজেন্ড তকমা দিলেন ভিনিসিয়াস।

ভিনিসিয়াস ভিসুভিয়াস-এ মুগ্ধ খোদ রিয়াল বস জিদানও। ম্যাচ শেষে বলেও গেলেন, আমরা জানি, ভিনিসিয়াসকে জায়গা দিলে ও কতটা ভয়ংকর। ওর প্রথম গোলটা অনবদ্য ছিল। ভিনিসিয়াসের মতোই দলের জয়ে অবদান রাখলেন রিয়ালের আরেক মেঘে ঢাকা তারা মার্কো অ্যাসেন্সিও।