প্রথম দফার ভোটে কোন কেন্দ্র কেনই বা নজরকাড়া ?

156

পোর্টাল ডেস্ক: রাজ্যে শুরু ভোট যুদ্ধ। প্রথম দফায় জঙ্গলমহলের ৩০ আসনে ভোট দিয়ে ২০২১ আসনে ভোটের মধ্যে দিয়ে এই লড়াইয়ের সূচনা। লোকসভা নির্বাচনে গোটা জঙ্গলমহলেই একচেটিয়া দাপট দেখিয়েছে বিজেপি৷ ফলে বিধানসভা নির্বাচনে জঙ্গলমহলে পায়ের তলার মাটি ফিরে পাওয়ার লড়াই তৃণমূলের৷ এবারের ভোটে বেশ কিছু আসনে যেমন তারকা প্রার্থী রয়েছে, তেমনি কিছু আসনে লড়াই করছেন রাজনৈতিক হেভিওয়েটরাও।এবারের ভোটে কাঁথি উত্তর এবং কাঁথি দক্ষিণ- এই দুই আসনের উপর রাজ্যবাসীর নজর থাকবে। কারণ এই আসন দুটিই শুভেন্দু অধিকারি, শিশির অধিকারিদের গড় বলে পরিচিত। পূর্ব মেদিনীপুরের রামনগর কেন্দ্র থেকে লড়াই করছেন তৃণমূলের অখিল গিরি। শুভেন্দু অধিকারী বিজেপি-তে যোগদানের পর জেলায় তৃণমূলের সংগঠনকে ধরে রাখতে জেলায় তৃণমূলের বড় ভরসা অখিলবাবু।

মেদিনীপুর কেন্দ্র থেকে লড়াই করছেন অভিনেত্রী জুন মালিয়া। জুন মালিয়া প্রার্থী হওয়ায় এই কেন্দ্রটিকে ঘিরে আমজনতার আগ্রহ আরও বেড়ে গিয়েছে৷ এবার নিজের গড়বেতা কেন্দ্র ছেড়ে শালবনি কেন্দ্র থেকে লড়ছেন সিপিএম নেতা সুশান্ত ঘোষ৷ তাঁর বিরুদ্ধে তৃণমূলের হেভিওয়েট প্রার্থী শালবনি কেন্দ্রের দু’ বারের বিধায়ক শ্রীকান্ত মাহাতো৷ একসময় সিপিএমের দাপুটে নেতা সুশান্ত ঘোষ রাজ্য বিধানসভায় ফিরতে পারেন কি না, তা নিয়েও আগ্রহ তুঙ্গে৷ ঝাড়গ্রাম কেন্দ্রে এবার তৃণমূলের প্রার্থী সাঁওতালি সিনেমার অভিনেত্রী বিরবাহা হাঁসদা৷ ঝাড়গ্রামে তাঁর  ভাগ্যে শিঁকে ছেঁড়ে কি না তা জানতে ২ মে পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

- Advertisement -

পুরুলিয়ার বলরামপুর থেকে এবারও লড়ছেন রাজ্যের মন্ত্রী শান্তিরাম মাহাতো৷ লোকসভা নির্বাচনে পুরুলিয়া জুড়ে বিজেপি ভাল ফল করায় নিজের কেন্দ্র ধরে রাখা বড় চ্যালেঞ্জ শান্তিরাম মাহাতোর।পুরুলিয়ার জয়পুর কেন্দ্রটি প্রথম থেকেই চর্চায় রয়েছে। মনোনয়ন পত্রে ভুল থাকায় এই কেন্দ্রে তৃণমূল প্রার্থীর মনোয়নই বাতিল হয়ে যায়৷ সেই কারণেই আলোচনার কেন্দ্রে চলে আসে পুরুলিয়ার জয়পুর কেন্দ্রটি৷ এই কেন্দ্রে নির্দল প্রার্থী দিব্যজ্যোতি সিং দেও-কে সমর্থন করছে তৃণমূল৷