ওয়েব ডেস্কঃ সকাল থেকে ইভিএম খারাপ থাকায় প্রার্থী নিজেই ভোট দিতে এসে আটকে গেলেন। আবার কোথাও প্রার্থী বুথে ঢোকা নিয়ে কেন্দ্রীয় বাহিনী জওয়ানদের সঙ্গে বচসায় জড়িয়ে পড়লেন। সেইসঙ্গে বিক্ষিপ্ত গোলমাল। রাজ্যে প্রথম দফার ভোটে কোচবিহার ও আলিপুরদুয়ারের খণ্ডচিত্রটা প্রথম একঘণ্টায় মোটামুটি এরকমই। গোলমালের খবর পাওয়া যাচ্ছে দিনহাটা ও মাথাভাঙ্গার বহু এলাকা থেকে। মাতালহাটে তৃণমূল-বিজেপির একদফা সংঘর্ষ হয়েছে সাতসকালেই। নয়ারহাট ও কুর্শামারিতে একাধিক বুথ থেকে পোলিং এজেন্টকে বের করে দেওয়া অভিযোগ করেছে বিজেপি। ডাওয়াগুড়ির বুথে ঢোকা নিয়ে কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানদের সঙ্গে কথা কাটাকাটিতে জড়িয়ে পড়েন।দিনহাটা ভেটাগুড়ির ৭/২৩৪ নং বুথে হঠাৎই ভিভিপ্যাট মেশিন খারাপ হয়ে যাওয়ায় প্রায় আধ ঘন্টার জন্য আটকে থাকে ভোট।

ইভিএম বিকল হওয়ার একাধিক ঘটনার খবর পাওয়া গিয়েছে আলিপুরদুয়ার কেন্দ্রে। সকালে মন্দিরে পুজো দিয়ে কুমারগ্রাম চা বাগানের ১০/৩৯ নম্বর বুথে ভোট দিতে আসেন আলিপুরদুয়ারের তৃণমূল প্রার্থী দশরথ তিরকি। কিন্তু মকপোলের পর মেশিন খারাপ হয়ে যাওয়ায় তখন তিনি ভোট দিতে পারেননি। পরে মেশিন ঠিক হলে তিনি এসে ভোট দেন। ইভিএম খারাপ ছিল কালচিনির ১১/২১৩ নম্বর এবং মাদারিহাটে শান্তিপুর এসএসকে ১৪/৮৪ বুথেও। আলিপুরদিয়ার শহরের দিটি বুথেও ইভিএম খারাপ থাকায় সেগুলি বদলের পর ভোটগ্রহণ শুরু হয়। প্রায় একঘণ্টা পর এখানে মেশিন সারিয়ে ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। বানারহাটের লক্ষ্মীপাড়া চা বাগানে ২১/২২৪ নম্বর বুথে সকালেই ভোট দেন এই কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী জন বারলা।

ছবিঃ ভোট দিয়ে বেরিয়ে বিজেপি প্রার্থী জন বারলা ও ভোটের লাইনে তৃণমূল প্রার্থী দশরথ তিরকি