দূষিত জলই ভরসা চিকনমাটির বাসিন্দাদের

301

কৌশিক দাস, ক্রান্তি : পরিস্রুত পানীয় জলের অভাবে ভুগছেন ক্রান্তির চিকনমাটি গ্রামের দুহাজারেরও বেশি বাসিন্দা। স্থানীয় গ্রাম পঞ্চায়েতের তরফে গ্রামবাসীদের জন্য টিউবওয়েল বসানো হলেও সেগুলির বেহাল দশা। বেশ কিছু টিউবওয়েলের জল পানের অযোগ্য বলে দাবি গ্রামবাসীদের। স্থানীয় গ্রামবাসীদের পাশাপাশি বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন এলাকার পঞ্চায়েত সদস্য পবিত্র রায়।

গ্রামবাসীদের বক্তব্য, প্রতিবার ভোটের সময় নেতারা নানা প্রতিশ্রুতি দেন। কিন্তু ভোট পার হলে গ্রামের মানুষদের দুর্দশা আর ঘোচে না। ক্ষমতা দখলের পর তাঁরা আর সাধারণ মানুষের দিকে ফিরেও তাকান না। চিকনমাটি গ্রামের অধিকাংশ মানুষই দারিদ্র‌্যসীমার নীচে বাস করেন। অভাবকে সঙ্গী করেই তাঁদের দিন কাটে। কিন্তু তাই বলে ন্যূনতম পরিসেবাও কি তাঁরা পাবেন না ? প্রশ্ন গ্রামবাসীদের। তাঁদের সঙ্গে কথা বলে জানা গিয়েছে, টিউবওয়েল অকেজো থাকায় কুযোর দূষিত জল খেয়ে অধিকাংশ মানুষ পেটের সমস্যায় ভুগছেন। নৃপেন রায় নামে এক গ্রামবাসী বলেন, গ্রামে এতগুলো পরিবার রয়েছে। অথচ আমাদের সমস্যার দিকে কোনো নজর নেই স্থানীয় গ্রাম পঞ্চায়েতের। ভোটের সময় ছাড়া নেতাদের দেখা মেলে না। পঞ্চায়েত থেকে দেওয়া বেশিরভাগ নলকূপ নষ্ট হয়ে গিয়েছে। ফলে কুযোর নোংরা জলই আমাদের ভরসা।

- Advertisement -

আর এক গ্রামবাসী গৌরাঙ্গ রায় বলেন, ক্রান্তির অন্যান্য এলাকার তুলনায় আমরা অনেকটাই পিছিয়ে রয়েছি। নোংরা পানীয় জল খেয়ে বহু গ্রামবাসী পেটের সমস্যায় ভুগছেন। এলাকায় জনস্বাস্থ্য কারিগরি দপ্তরের পরিশোধিত পানীয় জল সরবরাহ করার দাবি জানাচ্ছি। পঞ্চায়েতের সদস্য পবিত্র রায় বলেন, গ্রামবাসীদের দাবি যুক্তিযুক্ত। এলাকায় পানীয় জলের সমস্যা রয়েছে। গ্রাম পঞ্চায়েতে বিষয়টি জানানো হয়েছে। গ্রামবাসীরা যাতে পরিস্রুত পানীয় জল পায় সে ব্যাপারে আমার তরফে উদ্যোগের কোনো খামতি থাকবে না। ক্রান্তি গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান বসুন্ধরা দাস বলেন, পানীয় জলের সমস্যার বিষয়টি আমরা গভীর সহানুভতির সঙ্গে দেখছি। খুব শীঘ্রই এই সমস্যার সমাধান করা হবে।