আইএসএফ-এর সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত তৃণমূল কর্মী, গ্রেপ্তার ৬

92

ক্যানিং ও ব্যারাকপুর: আইএসএফ-এর সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত হলেন এক তৃণমূল কর্মী। ঘটনায় নরেন্দ্রপুর থানার পুলিশ ৬ জন আইএসএফ সমর্থককে গ্রেপ্তার করেছে।

বুধবার রাতে দক্ষিণ ২৪ পরগনার নবগঠিত বারুইপুর পুলিশ জেলার অন্তর্গত বারুইপুরের বেলেগাছিতে তৃণমূল কংগ্রেস সমর্থকদের সঙ্গে আইএসএফ সমর্থকদের সংঘর্ষ বাধে। আইএসএফ-এর অভিযোগ, তৃণমূলের লোকজন তাদের দলীয় দপ্তরে হামলা চালালে দুপক্ষের সংঘর্ষ বেধে যায়। তৃণমূলের তরফে অবশ্য অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে। ওই ঘটনায় একজন তৃণমূল কর্মীকে গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে সেখানে তাঁর মৃত্যু হয়। ৬ জন আইএসএফ সমর্থককে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

- Advertisement -

অপরদিকে, উত্তর ২৪ পরগনার ব্যারাকপুর পুলিশ কমিশনারেট-এর অধীন টিটাগর থানা এলাকায় ওয়াই মধু বাবুরাও নামে এক দর্জির দোকানের মালিক গুলিবিদ্ধ হন। তাঁকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এই বিষয়ে ব্যারাকপুরের নিহত বিজেপি নেতা মণিশ শুক্লার বাবা জানান, গতকাল ব্যারাকপুরের তৃণমূল প্রার্থী রাজ চক্রবর্তীকে নিয়ে তৃণমূল কর্মীরা একটি মিছিল বের করেছিলেন। সেই মিছিল থেকে বেরিয়ে দু’জন মধুবাবুর উপর গুলি চালান। আহত ব্যক্তি তাঁর ছেলে মণিশ শুক্লার ঘনিষ্ঠ বলে তিনি দাবি করেন। সে জন্যই তার উপর গুলি চালানো হয়েছে। এই বিষয়ে স্থানীয় সংসদ তথা বিজেপি নেতা অর্জুন সিং জানান, এই বিষয়ে তাঁরা নির্বাচন কমিশনের কাছে অভিযোগ দায়ের করবেন। যদিও ঘটনার কথা অস্বীকার করেছে তৃণমূল।