‘আমরাও খবর দেখি না, খবর পড়ি না, খবর তৈরি করি,’ মিঠুনের পাল্টা মদন

160

গাজোল: ‘আমি জলঢোড়াও নয়, বেলোবোড়াও নই। আমি একটা কোবরা। আমি জাত গোখরো। এক ছোবলে ছবি।’ সদ্য বিজেপিতে যোগদানকারী মিঠুন চক্রবর্তী এহেন মন্তব্যের পাল্টা সুর চড়ালেন তৃণমূল নেতা মদন  মিত্র। তিনি বলেন, আমরাও খবর দেখি না, খবর পড়ি না, খবর তৈরি করি। ইংরেজি থেকে যারা গুন্ডামি করতে আসবে তাদের উদ্দেশ্যে বলি, ‘মারব এরাজ্যে, লাশ পড়বে ভিন রাজ্যে।’

আগামী বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থীদের সমর্থন জানিয়ে এবং আদিবাসীদের সারনা ধর্ম কলাম কোডের দাবিতে এদিন গাজোল কলেজ ময়দানে সমাবেশের ডাক দিয়েছিল ঝাড়খন্ড দিশম পার্টি এবং আদিবাসী সেঙ্গেল অভিযান। এদিনের সভায় আদিবাসী সেঙ্গেল অভিযানের সর্বভারতীয় সভাপতি সালখান মুর্মু, ঝাড়খন্ড দিশম পার্টির সর্বভারতীয় সভাপতি সুমিত্রা মুর্মু, রাজ্য নেত্রী পানমুনি বেসরা, রাজ্য সভাপতি মোহন হাঁসদা র পাশাপাশি উপস্থিত ছিলেন উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ, তৃণমূল নেতা মদন মিত্র সহ অন্যান্যরা।

- Advertisement -

এদিনের সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে গিয়ে মদন মিত্র বলেন, ‘৫ হাজার কোটি টাকা খরচা করেও ব্রিগেড ভরাতে ব্যর্থ হয়েছে বিজেপি। বাংলায় বিজেপির কোনও মুখ নেই। তাই ভিন রাজ্য থেকে ভাড়া করে কাউকে কাউকে আনতে হচ্ছে। আর কতগুলো দালাল রয়েছে যাদের খাইয়ে-পড়িয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মানুষ করেছেন তারাই এখন গদ্দার হয়ে মোদি মোদি করছে। কিন্তু দিদি বাংলার ঘরের মেয়ে, এরাজ্যে ১০০টা মোদী এলেও কিছুই করতে পারবেন না। ক্ষমতায় আসার আগে মোদী বড় বড় ভাষণ দিয়েছিলেন। প্রত্যেকটি একাউন্টে ১৫ লাখ টাকা করে দেওয়া হবে। বছরে ২ কোটি বেকারের চাকরি দেওয়া হবে। তার একটাও হয়নি। আর যাদের জন্য মোদী আজ প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন সেই আদিবাসীদের অধিকার কেড়ে নিতে চাইছেন তিনি। সাঁওতাল বিদ্রোহ ইংরেজ শাসনের ভিত নাড়িয়ে দিয়েছিল। সেই সাঁওতালদের জল, জঙ্গল এবং জমির অধিকার কেড়ে নিতে চাইছে বিজেপি। আর অন্যদিকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সেই অধিকার আদিবাসীদের ফিরিয়ে দিয়েছেন। তাই আদিবাসীদের স্বার্থেই রাজ্যের ক্ষমতায় আবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেই ফিরিয়ে আনতে হবে।

উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ বলেন, ‘আদিবাসীদের নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন আদিবাসী নেতা তথা প্রাক্তন সাংসদ সালখান মুর্মু। তাঁর নেতৃত্বেই সাঁওতালি ভাষা অষ্টম তফসিলে অন্তর্ভুক্ত হয়। বিজেপির নেতৃত্বাধীন কেন্দ্রীয় সরকার কারও অধিকার মানতে চায় না। কিন্তু আদিবাসীরা হিন্দু ধর্মাবলম্বী নন। তারা প্রকৃতির পূজারী। জল, জঙ্গল এবং জমিকে পুজো করে থাকেন তাঁরা। সারনা ধর্মের স্বীকৃতির দাবিতে আদিবাসীদের লড়াই আন্দোলন চলছে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আদিবাসীদের এই দাবীর সাথে সহমত। আগামীতে রাজ্যের মানুষের জন্য আরও কাজ তিনি করবেন। তাই রাজ্যের স্বার্থেই তৃণমূল প্রার্থীদের আপনারা সমর্থন করুন।